লকডাউনের সচেতনতা বাড়াতে এবার মিম বানাল পুলিশ

0
865

করোনাভাইরাস নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে এবং লকডাউনে সবাইকে ঘরে রাখতে এবং বাইরে বেরলে মাস্ক নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে পুলিশের উদ্যোগ প্রশংসিত সর্বত্র। এবার সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে লকডাউন না ভাঙার বার্তা পৌঁছে দিতে নজরকাড়া মিম ব্যবহার করলো পুলিশ। করোনার সংক্রমণ থেকে নিজেদেরকে বাঁচাতে হবে। আবার কর্তব্য পালনেও অবিচল থাকতে হবে। আর তাই অভিনব উদ্যোগ নিল পুলিস। পুলিশের এই নয়া মিম প্রশংসার ঝড় তুলেছে নেটিজেনদের মধ্যে।

লকডাউনের প্রথম দিন থেকেই নরমে গরমে ঘরে আটকে রাখার চেষ্টা করছে পুলিশ। কখনোও চোখরাঙানি, কখনোও গান গেয়ে লকডাউনের প্রয়োজনীয়তা বোঝানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন পুলিশকর্মীরা। এবার পুলিশ মিম এর মাধ্যমে মানুষকে ঘরে থাকার বার্তা দিচ্ছেন।

‘দেওয়া নেওয়া’ ছবির উত্তম কুমার ও কমল মিত্রের মুখে কয়েকটি নির্দিষ্ট সংলাপ সোশ্যাল মিডিয়ায় মিম হিসেবে বহুল প্রচলিত। সেই সংলাপকেই একটু অদল বদল করে লকডাউনে বাইরে বেরোলে কী সমস্যা হতে পারে, তা বোঝানোর চেষ্টা করেছে কলকাতা পুলিশ। কলকাতা পুলিশের মিম এর সংলাপ হল, উত্তম কুমার বলছে,তাহলে আপনি বলতে চান যে লকডাউনে জরুরি দরকার ছাড়া বাইরে বেরলে কলকাতা পুলিশ আমার বারোটা বাজিয়ে দেবে? এর প্রতি উত্তরে কমল মিত্র বলছে, বলতে চান নয় বলছি !

পুনে পুলিশের অফিসিয়াল টুইটারে হ্যান্ডল থেকে মাস্ক পরিহিত আমির খানের একটি ছবি ও লেখা শেয়ার করতে দেখা যায়। গজনী ছবিতে আমির খানের চরিত্রটি স্বল্পমেয়াদী স্মৃতিশক্তিতে রোগাক্রান্ত ছিল বলে দেখা যায়। যেহেতু সে সহজেই সব জিনিস ভুলে যেত তাই মনে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ জিনিস গুলির কথা সারা গায়ে উল্কি করিয়ে রাখতো। এরই প্রসঙ্গ টেনে গজনী লুকে আমিরের পোস্টার সহ মাস্ক পড়ার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে পুনে পুলিশকে সতর্ক করতে দেখা যায়। সেখানে মুখোশ পরিহিত আমিরের ছবি শেয়ার করে লেখা হয়েছে, “সবকিছু ভুলে যেতে পারেন তবে মুখোশ পরতে ভুলবেন না।”

কলকাতা পুলিসেরই এক থানার অফিসার ইন চার্জ রাস্তায় ডিউটি করতে গিয়ে অসুবিধে বোধ করেন। তিনি লক্ষ্য করেন যে, শুধু মাস্ক পরে রাস্তায় বা ভিড়ের মধ্যে ডিউটি করা সম্ভব নয়। তাতে সম্পূর্ণভাবে সংক্রমণ রোখা সম্ভব হবে না। এরপর তিনি নিজেই ডিজাইন করেন একটি মাস্ক। কীভাবে গোটা মুখকে  ঢাকা যায় ও আরও সুরক্ষিতভাবে ডিউটি করা যায়? যেমন ভাবা তেমন কাজ।

সূত্র

নিজেই মাস্কের নকসা এঁকে লালবাজার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেন। যাতে শুধু নাক, মুখ নয়। নতুন ধরনের এই মাস্কে ঢাকা যাবে গোটা মুখমণ্ডলটাই। আজ পরীক্ষামূলকভাবে নতুন এই ফেস সিল মাস্ক কিছু পুলিসকর্মীর হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরে বাহিনীর বাকিদের হাতেও তুলে দেওয়া হবে।

সূত্র –