“লা’শ বাড়াতে না চাইলে রাজনীতি থামান” আমেরিকাকে জবাব দিল ‘বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’

0
183

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কী চীন ঘেঁষা?‌ এমন অভিযোগ করেছেন স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর এই অভিযোগ তুলে এবার ট্রাম্পের হুম’কির মুখে পড়ল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (‌হু)‌। আসলে‌ করো’না ভাই’রাসে কাবু আমেরিকা। আক্রান্ত ও মৃ’তের সংখ্যা রোজ মাত্রা ছাড়িয়েছে। তারই মধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর অভিযোগ, চীনের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করছে হু।

হু আগে থেকে ভাই’রাস প্রতিরোধের কোনও পরামর্শও দেয়নি বলে অভিযোগ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে আর্থিক সাহায্য বন্ধ করে দেওয়া হবে। এই হুমকির পর আন্তর্জাতিক স্তরে বেশ শোরগোল পড়ে গিয়েছে। হু-এর খরচার প্রায় ২২ শতাংশ আসে আমেরিকা থেকে।

বিশ্বে কমপক্ষে ৮৩,০০০ মানুষের মৃ’ত্যু হয়েছে ভয়’ঙ্কর এই রোগে, আক্রান্ত ১৪ লক্ষেরও বেশি। এই পরিস্থিতিতেও চোখ রাঙানো বন্ধ হয়নি আমেরিকার। তবে যোগ্য জবাব দেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। ট্রাম্পের সেই হুঁশিয়ারির ও সমালোচনার পাল্টা জবাব দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেয়েসাস। তিনি বলেন, ‘করো’না ভাই’রাস নিয়ে রাজনীতি করলে এর ফল মারাত্মক হতে পারে। লাশ যদি আরো না চান তাহলে এটা নিয়ে রাজনীতি থামান। এটা আগুন নিয়ে খেলার সময় নয়। যদি বেঁচে থাকেন তবে রাজনৈতিক দলগুলির হয়ে বিরোধিতা করার জন্যে, নিজেদের প্রাসঙ্গিকতা প্রমাণ করার জন্যে আরও অনেক সময় পাবেন, দয়া করে এই ভাই’রাসটিকে রাজনীতির অস্ত্রে পরিণত করবেন না।’

তিনি আরও বলেন, “যেখানে সামান্য ফাঁক থাকবে সেখান দিয়েই ভাই’রাস ঢুকে আমাদের এই যুদ্ধে হারিয়ে দিতে পারে। কোনও দেশের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থা যতই ভাল হোক না কেন, জাতীয় ঐক্য ছাড়া, গোটা বিশ্বের ঐক্য ছাড়া এই ভাই’রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করা কঠিন। যদি বেঁচে থাকেন তবে রাজনৈতিক দলগুলির হয়ে বিরোধিতা করার জন্যে, নিজেদের প্রাসঙ্গিকতা প্রমাণ করার জন্যে আরও অনেক সময় পাবেন, দয়া করে এই ভাইরাসটিকে রাজনীতির অস্ত্রে পরিণত করবেন না।”

উল্লেখ্য, আমেরিকার থেকেই নিজেদের স্বাস্থ্য তহবিলে বড় অঙ্কের অর্থ সাহায্য পায় ‘হু’। রীতিমতো হুঙ্কার ছেড়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন যে, “আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জন্যের বরাদ্দ তহবিলের পরিমাণ কমানোর ভাবনাচিন্তা করছি। যা পরিস্থিতি তাতে সবার আগে নিজের দেশ অর্থাৎ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের কথাই সর্বাগ্রে চিন্তা করতে হবে”। প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জন্য ৪০ কোটি ডলারের বেশি তহবিল দিয়েছে।

সূত্র –