সন্তানদের খিদের জ্বালা মেটাতে ১৫০ টাকায় নিজের চুল বিক্রি করে দিলেন মা!

0
274

পেটে ভাত নেই। খিদের জ্বা’লায় অঝোরে কেঁদে চলেছে সন্তানরা। বাধ্য হয়ে সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিতে ১৫০ টাকায় মাথার চুল বিক্রি করে দিলেন মা! অস’হায়তার এই করুণ ছবি তামিলনাড়ুর সালেম এলাকার। একজন মা তাঁর তিন সন্তানের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য নিজের মাথার চুল বিক্রি করে দিল। দুই, তিন ও পাঁচ বছরের তিন সন্তান তাঁর। কারও মুখেই খাবার তুলে দিতে পারছিলেন না প্রেমা।

রোজগার নেই। পড়শিরাও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে অস্বীকার করেছে। তাই আর কোনও উপায় ছিল না তাঁর কাছে। নিজের মাথার সমস্ত চুল বিক্রি করে প্রেমা হাতে পেলেন ১৫০ টাকা। তাতে অন্তত একটা দিন তাঁর সন্তানের পেটের ভাত জুটল।

তামিলনাড়ুর সালেমের বাসিন্দা প্রেমা। স্বামী ও ৩ সন্তানকে নিয়ে সংসার ছিল তাঁর। স্বামী-স্ত্রী দুজনেই একটি ইটভাটায় কাজ করতেন। হঠাৎই প্রেমার স্বামী ব্যবসা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। আড়াই লক্ষ টাকা ধার করে ব্যবসা শুরুও করেছিলেন। কিন্তু এক প্রতা’রকের ফাঁদে পা দিয়ে ধার দেনায় ডুবে যান তিনি। এরপর পাওনাদারদের চাপে কয়েকমাস আগে আ’ত্মহ’ত্যার পথ বেছে নেন প্রেমার স্বামী। তাঁর মৃ’ত্যুর পর তিন সন্তানকে নিয়ে অথৈ জলে পড়তে হয় ওই মহিলাকে। প্রথম দিকে সন্তানদের নিয়ে কোনওক্রমে চলে গেলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বাচ্চাদের দায়িত্ব পালন প্রেমার কাছে কার্যত অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়।

কী করবে কিনারা না পেয়ে প্রথমে হাতে পাওয়া ১৫০ টাকা দিয়ে দোকানে কী’টনা’শক কিনতে গিয়েছিলেন প্রেমা। পরিকল্পনা ছিল, কী’টনা’শক খেয়ে আ’ত্মহ’ত্যা করবেন। কিন্তু প্রেমার হাবভাব দেখে দোকানদারের সন্দেহ হয়। তিনি তাই কী’টনাশ’ক বিক্রি করেননি। এর পর বি’ষাক্ত গাছ খেয়ে ম’রতে চেয়েছিলেন প্রেমা। কিন্তু তাতে বাধা দেয় তাঁর বোন। দিনের পর দিন দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই! কতদিন আর মন শক্ত করে লড়বেন তিনি। প্রেমার দুর্ভাটগ্যের কথা জানাজানি হওয়ার পর অবশ্য অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। সালেমের জেলা প্রশাসন তাঁকে বিধবা ভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সূত্রের খবর সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য পাড়া-প্রতিবেশীদের কাছে হাত পাতেন প্রেমা। কিন্তু সাহায্যের হাত বাড়িতে দেননি কেউ। সেই সময় এক ব্যক্তি প্রেমাকে দেখতে পান। পরচুল তৈরির জন্য চুল প্রয়োজন ছিল তাঁর। আর সন্তানদের জন্য টাকার দরকার ছিল প্রেমার। তাই ১৫০ টাকার বিনিময়ে ওই ব্যক্তি মাথার চুল কিনতে চাইতেই রাজি হয়ে যান প্রেমা। চুল বিক্রির টাকায় সন্তানদের হাতে খাবার তুলে দেন তামিলনাড়ুর এই বধূ। তবে গোটা ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতে ইতিমধ্যেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অনেকেই। প্রশাসনের তরফেও ভাতার ব্যবস্থা করা হবে জানা গিয়েছে। এবার হয়তো ভয়ংকর লড়াই থেকে কিছুটা হলেও স্বস্তি মিলবে, সন্তানদের নিয়ে সেই আশায় প্রেমা।