অনলাইন শপিং এর অর্ডারে আসা বাক্স থেকে বেরিয়ে এলো কুমির

0
682

অনলাইন শপিং, এক ক্লিকেই বাজিমাত ৷ প্রযুক্তি নির্ভর যুগে আট থেকে আশি সকলেই মনেই যেন বাসা বেঁধেছে এই অনলাইন শপিংয়ের কীট ৷ বাড়ি বসে হাতের নাগালে জিনিস পেয়ে যাওয়ার মজাটাই আলাদা ৷ আর, সেভাবেই চলছে দুনিয়া ।

তবে, ভালদিকের সঙ্গে রয়ছে মন্দ দিকও ৷ সেদিক থেকে বিচার করলে ডাহা ফেল অনলাইন শপিং ৷ হামেশাই সামনে আসে জিনিস বদলের ঘটনা ৷ সাইজ বা রঙের অমিল, সে তো খুবই সাধারণ ৷ বেশ কিছু দিন আগে শুরু হয়েছিল গ্যাজেট (স্মার্টফোন) বদলের ট্রেন্ড ৷ যেখানে গ্রাহক একাধিকবার হাতে পেয়েছেন স্মার্টফোনের বদলে ইটে ভরতি বাক্স ।

কিন্তু চিনের ছোট্ট এক শহরের বাসিন্দা অনলাইন শপিং করতে গিয়ে যে অভিজ্ঞতার সাক্ষী হলেন, তা সত্যিই অদ্ভুত ৷ আগে অনলাইন শপিং করতে গিয়ে এমন অভিজ্ঞতা কারও হয়েছে কি না সন্দেহ ।

 

চিনের সুইচ্যাংয়ের দীর্ঘদিনের বাসিন্দা জ্যাং ৷ নিজের পরিবারের জন্য অনলাইনে খাবারের (হেলথ সাপ্লিমেন্ট) অর্ডার দিয়েছিলেন তিনি ৷ সময় মতো একজন ডেলিভারি বয় বাড়িতেও আসে তাঁর ৷ টাকার পরিবর্তে পরিপূরক খাবারের চারটি বাক্স ওই মহিলার বাড়িতে দিয়ে যান তিনি ৷ কিছুক্ষণের মধ্যেই একের পর এক বাক্স খুলে অর্ডার অনুযায়ী খাবার পেয়েছেন কি না, তা দেখতে শুরু করেন ওই মহিলা ৷ তিনটি বাক্স খুলে তাঁর প্রয়োজনীয় পরিপূরক খাবারই পান ৷ কিন্তু চতুর্থ বাক্স খুলেই অবাক হয়ে যান মহিলা ৷

পরিপূরক খাবারের বদলে এটা কী ? তাজ্জব হয়ে যান তিনি ৷ মহিলা দেখেন, চতুর্থ বাক্সের মধ্যে গুটিশুটি দিয়ে শুয়ে রয়েছে একটি কুমির ! ওই কুমিরটিকে দিব্যি সুন্দরভাবে মুড়ে রাখা হয়েছিল বাক্সের ভিতর ৷ নাড়াচাড়া করে তিনি বুঝতে পারেন বাক্সের ভিতরে থাকা ওই কুমিরটি আসলে মৃত ৷ সেই বাক্সের ভিতর থেকে দুর্গন্ধও বেরচ্ছিল ।

কুমিরটির একটি ভিডিও করেন ওই মহিলা ৷ তা নিজের সোশ্যাল অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেন ৷ মুহূর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় ভিডিওটি ৷ অনলাইন শপিং সংস্থার এমন কারসাজিতে সোশ্যাল সাইটে উঠেছে সমালোচনার ঝড় ৷ নেটিজেনরা রীতিমতো ক্ষুব্ধ ৷ ওই অনলাইন শপিং সংস্থার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলেই দাবি করেছেন তাঁরা ৷

অনলাইন শপিং সংস্থার বিরুদ্ধে বেজায় চটেছেন প্রতারিত মহিলা ও তাঁর স্বামীও ৷ এভাবে ওই সংস্থা দম্পতির সঙ্গে প্রতারণা করেছে বলেও দাবি তাঁদের ৷ থানায় অভিযোগও দায়ের করেছেন দম্পতি ৷ অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ওই বাক্সটি উদ্ধার করে ৷ অনলাইন সংস্থার পাঠানো চতুর্থ ওই কুমিরের বাক্স থেকে একটি কিউ আর কোডও পেয়েছেন পুলিশ আধিকারিকরা ।

চিনে বাড়িতে বাড়িতে কুমির রাখা আইনসিদ্ধ ৷ অনলাইন সংস্থার দাবি, ভুল করেই অন্য ঠিকানার পরিবর্তে ওই মহিলার কাছে কুমির চলে আসে ৷ বাক্সে ঢোকানোর আগে পর্যন্ত কুমিরটি বেঁচে ছিল বলেও দাবি সংস্থার ।