আমেরিকা থেকে ফিরে করোনার পরীক্ষা না করেই নিজের নাসিং হোমে চলে গেলেন দায়িত্বজ্ঞানহীন চিকিৎসক

0
161
প্রতীকী ছবি

ছেলে বিদেশ থেকে ফেরার পর দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণের জন্য করোনা আক্রান্তের চিকিৎসক বাবার সদস্যপদ খারিজ করে প্রশাসন। করোনা আতঙ্কের মাঝে ফের দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ করার অভিযোগ উঠল বসিরহাটের এক চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। সদ্য আমেরিকা থেকে ফেরার পর কোনও রকম পরীক্ষা না করিয়েই হাসপাতালের কাজে যোগদান করেছেন ওই চিকিৎসক। করেছেন দুটি অস্ত্রোপচারও। তিনি যে আমেরিকা থেকে ফিরেছেন সে সম্পর্কেও তথ্য গোপন করেছেন। দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ করার অভিযোগে তাঁর নার্সিংহোম সিল করেছে প্রশাসন।

স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশিকা অনুযায়ী কোয়ারান্টাইন যদি কোনো ব্যক্তি ভাঙে তবে সেই ব্যক্তির ১০০০ টাকা জরিমানা সহ ছয় মাসের কারাদন্ড হতে পারে।

প্রতীকী ছবি

করোনা ভাইরাসের মোকাবিলার জন্য বিদেশফেরতদের দায়িত্বশীল হতে আর্জি জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিদেশ-ফেরত নাগরিকদের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘দায়িত্বশীল হোন। যাঁরা ফিরেছেন, তাঁরা ১৪ দিন বাড়িতে থাকুন। কয়েক দিন বাড়িতে থাকলে কোনও সমস্যা হওয়ার কথা নয়। নিজে বাঁচুন, পরিবারকে বাঁচান। তাতে রাজ্য বাঁচবে। রাজ্য বাঁচলে দেশ বাঁচবে’। স্বাস্থ্য দফতরের নির্দেশ, আমেরিকা, ব্রিটেন, চিন, মধ্য প্রাচ্যের মত দেশ থেকে এসে ১৪ দিন কোয়ারান্টাইনে থাকতে হবে, শ্বাসকষ্ট, সর্দি, কাশি, জ্বরভাব বা জ্বর- এই চারটি উপসর্গের কোনও একটি দেখা দিলেই হাসপাতালে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, সেই নির্দেশ বারবার উপেক্ষা করা হচ্ছে।

প্রতীকী ছবি

কিন্তু সেই সব নিয়মের তোয়াক্কা না করেই রইলেন ওই আমেরিকা ফেরত চিকিৎসক। যদিও সব কিছু জানাজানি হয়ে গেলে ওই চিকিৎসককে কোয়ারান্টাইনে রাখা হয়েছে। এই রকম আচরণের জন্য ওই চিকিৎসকের নার্সিংহোম লক করে দেওয়া হয়। ফলে বিপাকে পড়েন ওই চিকিৎসক। করোনা নিয়ে যেখানে বারবার করে নিজেদের আইসোলেশনে রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা, সেখানে একজন চিকিৎসক হয়ে এই রকম দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় সত্যিই নিন্দনীয়।