করো’না মারতে ‘সূর্যের আলো’ ইনজে’কশনের মাধ্যমে দেহে পুশ করার পরামর্শ ট্রাম্পের

0
376

করো’না ভাই’রাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারে যখন বিজ্ঞানীরা হতাশ। চিকিৎসা বিজ্ঞান যেখানে বারবার পরাজিত সেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিয়ে এসেছেন এক অভিনব পন্থা। করো’না সারাতে তিনি শরীরে জীবা’ণুনা’শক ঢুকিয়ে অথবা অতিবেগুনী রশ্মি প্রয়োগ করে তা ধ্বংস করার উপায় বলছেন। এতে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন ট্রাম্প। চিকিৎসকরা বলছেন, এটা একেবারেই ভ্রান্ত ধারণা। ট্রাম্প বলেছেন, শরীরে জীবা’ণুনা’শক অথবা অতিবেগুনী রশ্মির প্রবেশকে করো’না ভাই’রাসের চিকিৎসার উপায় হিসাবে নিয়ে গবেষণা হওয়া উচিত।

বেশ কিছু গবেষণা আছে যে, সাধারণভাবে সূর্যের আলোতে সরাসরি এলে কিছু ভাই’রাস দ্রুত মা’রা যেতে পারে। কিন্তু করো’না ভাই’রাসকে মেরে ফেলার জন্য অতিবেগুনী রশ্মি কতক্ষণ প্রয়োগ করতে হবে সেই ব্যপারে কোনও তথ্য নেই।

প্রতীকী ছবি

যে কারণে চিকিৎসকরা বলছেন, করো’না সং’ক্রমণ থেকে বাঁচার অন্যতম উপায় হাত, শরীরের অন্যান্য অঙ্গ-প্রতঙ্গ ঘনঘন পরিষ্কার করা এবং মুখ, চোখ, নাক স্পর্শ না করা। সংক্র’মিত ব্যক্তির হাঁচি-কাশির মাধ্যমে বেরিয়ে আসা কণা শ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে অন্য ব্যক্তির শরীরে প্রবেশ করে। শরীরে প্রবেশের পরপরই এটি বংশ বৃদ্ধি করে এবং দ্রুত গতিতে বিস্তার ঘটাতে থাকে। সেখান থেকে ফুসফুসের মধ্যে সংক্রমণ ঘটায়।

প্রতীকী ছবি

ট্রাম্পের পরামর্শের সমালোচনা করেছেন চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, এ ভাই’রাসকে শরীরের ভেতরে ধ্বংস করতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জীবা’ণুনা’শক পুশ করার যে পরামর্শ দিয়েছেন; তাতে মানুষের মৃত্যুর ঝুঁকি বৃদ্ধি পাবে। এমনকি জীবা’ণুনা’শক পুশ করা হলেও তা ভাই’রাস পর্যন্ত পৌঁছাবে না। একইভাবে শরীরে এই ভাই’রাস ঢুকে পরার পর ত্বকের ওপর অতিবেগুনী রশ্মি প্রয়োগ করা হলেও তাতে কোনো কাজ হবে না।

সূত্র