দিদির বোল্ড ছবি থেকে টাকা কামাতো সানি লিওনের ভাই, প্রকাশ্যে এল অবাক করা তথ্য

0
1498

বলিউড অভিনেত্রী এবং সারা পৃথিবীতে পরিচিত জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন হলেন সানি লিওন, যিনি নিজের জীবনের ৩৭ বছর পার করার মধ্যে অনেক উত্থান-পতনের সাক্ষী থেকেছেন। ভালো দিন দেখার দেখার পাশাপাশি অনেক খারাপ দিনেরও সম্মুখীন হতে হয়েছে এই অভিনেত্রীকে। নানা ধরণের লোকজন এবং নিন্দুকদের তীর্যক মন্তব্যগুলিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে আজ বলিউডের অন্যতম সফল অভিনেত্রী হয়েছেন সানি লিওন।

সানি প্রথম জীবনে একজন পর্নতারকা ছিলেন এবং তিনি এই কাজ করতে বাধ্য হয়েছিলেন তার পরিবার ও ভাইয়ের জন্য, আর এই কথা এখন অনেকেই জানেন। এরকম অবস্থায় সম্প্রতি এক খবরে জানা গেছে, সানি লিওনের ভাই তার বোল্ড ছবি থেকে টাকা কামাতো এবং সেই ছবিগুলি আমেরিকাতে বিক্রি করতো। সানি লিওন নামটিও তার আসল নয়, তার আসল নাম ছিল করেনজিত কৌর ভোহরা। তাহলে সানি লিওন নাম কিভাবে হল আর তার ভাই কেনই বা তার ছবি বিক্রি করে টাকা কামাতো?

সম্প্রতি সানি লিওন তার বায়োপিকের জন্য চর্চার বিষয় হয়ে রয়েছিলেন। সানির জীবনের অনেক গোপন তথ্যই এই ওয়েব সিরিজের মাধ্যমে ফাঁস হয়। এই ওয়েব সিরিজে দেখানো হয়, সানির কাছে তার একমাত্র ভাই সন্দীপ ভোহরা কতটা আদরের। সানিকে যখন জিজ্ঞেস করা হয়, তখন তিনি জানান, পরিবারের আর্থিক অস্বচ্ছলতা এবং ভাইয়ের পড়াশোনার খরচের জন্যই সে পরিবারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গিয়ে পর্ন ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করা শুরু করে। এর থেকেই বোঝা যায় সানি তার ভাইকে কতটা ভালোবাসেন আর তার ভাই, দিদির করেনজিৎ কৌর থেকে সানি লিওন হয়ে উঠার সাক্ষী রয়ে গেছে।

সন্দীপ বর্তমানে আমেরিকাতে থাকে এবং পেশাগতভাবে একজন শেফ। ২০১৩ সালে সানি লিওন আমেরিকাতে পেন্টহাউস পেট অফ দা ইয়ার হয়েছিলেন আর এরপর থেকেই আমেরিকাতে সানি লিওনের জনপ্রিয়তার পাশাপাশি ফ্যান ফলোয়িংও বাড়তে থাকে। এমন অবস্থায় সানি লিওনের অটোগ্রাফ সমেত ছবি ভক্তদের অনেক বড় ব্যাপার ছিল। কিন্তু এটি সানি লিওনের ভাইয়ের কাছে অত্যন্ত সাধারণ ব্যাপার ছিল, সে বাড়িতে তার দিদির ছবিতে অটোগ্রাফ করিয়ে সেই ছবিগুলি আমেরিকাতে সহজেই ১০-১৫ ডলারে বিক্রি করতো।

এরপর সানি লিওন যখন প্রথমবার ফটোশ্যুট করিয়েছিলেন তখন সেই কথা শুধুমাত্র তার ভাই সন্দীপ জানতো। একজন সাধারণ মেয়ে থেকে কিভাবে পর্নতারকা হয়ে উঠলেন সানি এই ব্যাপারটিরও একমাত্র সাক্ষী ছিল তার ভাই।

সানি তার ভাইয়ের থেকে কোনো কথা লুকাতো না, সানির সব সিক্রেটের সমান ভাগীদার ছিল তার ভাই। তার ভাই জানতো যে, সানি প্রথমবারের জন্য ফটোশ্যুট করাতে যাচ্ছে, কিন্তু সন্দীপ এই কথা গোপন করে রাখে।

করেনজিৎ কৌর ভোহরা ফটোশ্যুট করার পর যখন তার ছবি প্রথমবারের জন্য সিলেক্ট হলো, তখন তাকে নাম বদলানোর পরামর্শ দেওয়া হয়। সানি লিওন যখন তার ভাইকে এই কথা জানায়, তখন সে তাকে ‘সানি’ নাম নেওয়ার প্রস্তাব দেয়। আর লিওন পদবীটা ইতালির পরিচালক সার্জিও লিওনির পদবী থেকে নেওয়া হয়। সন্দীপ তার দিদির নাম দেয় সানি লিওনি আর আপনাদের জানিয়ে রাখি যে, সন্দীপের ডাকনাম সানি এবং সে থেকেই সানি নামটি তার মাথায় আসে।