মাধ্যমিকের প্রশ্নপত্র ফাঁস কাণ্ডে ধরা পড়লেন এক যুবক

0
207

এই বছর মাধ্যমিকে ইংরাজি প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ তুললেন অভিভাবকরা। এদিন ইংলিশ পরীক্ষা শুরু হওয়ার ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই নাকি ফাঁস হয়ে গিয়েছে প্রশ্ন! এমন অভিযোগে সরব অভিভাবক ও শিক্ষক মহল। সেই প্রশ্ন হাতে মালদহের রতুয়ার এক পরীক্ষার্থীকে টিকটক ভিডিও করতে দেখা গিয়েছে। এই অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে দশম শ্রেণীর ওই পড়ুয়াকে। পরীক্ষা কেন্দ্রের ভিতর থেকে হোয়াটসঅ্যাপে প্রশ্নপত্র পাচার। আটক করা হয়েছে ওই ছাত্রের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন।

ঘটনাটি ঘটেছে মালদহের রতুয়া থানার বৈদ্যনাথপুর হাইস্কুলের। গ্রেফতার করা হয়েছে বাহারাল পি,এল,এস হাইস্কুলের এক পরীক্ষার্থীকে। পরবর্তী পরীক্ষা গুলির জন্য বরখাস্ত করা হয়েছে ওই মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে।

source

পুলিশ সূত্রে খবর, এদিন পরীক্ষা শুরু হওয়ার আধঘণ্টার মধ্যেই অভিযুক্ত পরীক্ষার্থী মোবাইলে প্রশ্নপত্রের দুটি পৃষ্ঠার ছবি তুলে নিয়েছিল। পরে নিজের টিকটক পেজ সেই ছবি আপলোড করে ভিডিও করতে দেখা গিয়েছে ওই পড়ুয়াকে। ফলে সংক্রমণের মতো সেই প্রশ্নপত্র ছড়িয়ে পরে অন্যত্র। প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় ওই পড়ুয়াকে। বৃহস্পতিবার তাকে জেলার কিশোর আদালতে তোলা হবে।

প্রশ্নপত্র হোয়াটসঅ্যাপ করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়লেন এই পরীক্ষার্থী। এই পরীক্ষার্থীকে ধরে ফেলে এক শিক্ষক গাইড দেওয়ার সময়। ইতিমধ্যেই ওই পরীক্ষার্থীকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও প্রশ্নপত্র হোয়াটস অ্যাপ করতে গিয়ে বারাকপুরে হাতে নাতে ধরা পড়ে ৩ পরীক্ষার্থী। পরীক্ষার দ্বিতীয়দিনও প্রশ্নপত্র বাইরে আসার ঘটনা সামনে আসতেই উদ্যোগী মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ৷ প্রশ্নপত্র আগলাতে এবার ডাক পড়ল সাইবার বিশেষজ্ঞদের। নবান্ন থেকে সাইবার ক্রাইমের অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার র‍্যাঙ্কের আধিকারিকরা গিয়েছেন। হোয়াটসঅ্যাপে প্রশ্নপত্র বেরোনো নিয়েই মূলত বৈঠকটি পর্ষদ সভাপতি ও সাইবারক্রাইমের বিশেষজ্ঞদের মধ্যে। বৈঠকে রয়েছেন স্কুল শিক্ষা দফতরের আধিকারিকরা ইতিমধ্যেই বৈঠক শুরু হয়ে গিয়েছে।

মধ্যশিক্ষা পর্ষদ আর পুলিশ ও প্রশাসনের নিয়েধাঞ্জাকে অমান্য করে পরীক্ষা কেন্দ্রের ভিতর মোবাইল ফোন নিয়ে হাজির পরীক্ষার্থী। মালদহের অতিরিক্ত জেলাশাসক উন্নয়ন অর্নব চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সাধারণ ভাবে পরীক্ষায় ঢোকার সময় ছাত্রছাত্রীদের শরীরে কোনওরকম তল্লাশি করা হয় না। এই সুযোগেই ওই ছাত্র লুকিয়ে মোবাইল ফোন ভেতরে নিয়ে যায় বলে মনে করা হচ্ছে। এরজন্য আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। দুপুর পৌনে একটা নাগাদ রতুয়ার বৈদ্যনাথপুর হাইস্কুলে মোবাইল-সহ হাতেনাতে ধরা পড়ে এক পরীক্ষার্থী। জেরার মুখে ওই পরীক্ষার্থী স্বীকার করে যে, মোবাইলে ইংরেজি প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে সে তার এক আত্মীয়কে হোয়াটসঅ্যাপ করেছে। ওই আত্মীয়ও দ্বাদশ শ্রেনীর পড়ুয়া। এরপরেই তাঁকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কি উদ্দেশ্যে প্রশ্নের ছবি তুলে বাইরে পাঠাল ওই পরীক্ষার্থী তার কোনও সদুত্তর মেলেনি।

সূত্র