নকল আরোগ্য সেতু অ্যাপ ছেড়েছে পাকিস্তান, সতর্ক করলো ভারতীয় গোয়েন্দারা

0
365

‘আরোগ্য সেতু’ অ্যাপ্লিকেশন – অর্থাৎ কো’ভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে সচেতনতা গড়ে তোলা ও সঠিক তথ্য পাওয়ার জন্য ভারতের সরকার যে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেছে সেই অ্যাপটিই জাল করা হয়েছে পাকিস্তান থেকে। বুধবার, এমনই দাবি করল ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলি। নকল আরোগ্য সেতু অ্যাপ ব্যবহার করে ভারতীয় সেনার ওপর নজরদারির চেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তানের গুপ্তচররা। করো’না ভাই’রাস পরিস্থিতিতেও নকল আরোগ্য সেতু অ্যাপ বানিয়ে ভারতীয় সেনাদের মোবাইল হ্যাক করে তথ্য হাতানোর ছক করছে ইসলামাবাদের গুপ্তচররা।

সতর্কবার্তায় সেনার তরফে জানানো হয়েছে, ‘সম্প্রতি বিপক্ষ চর সংস্থা Aarogya Setu.apk নামে একটি ক্ষ’তিকর অ্যাপ তৈরি করেছে। এই ধরনের অ্যাপ ভারতীয় সেনাকর্মীদের হোয়াটসঅ্যাপ-এর মাধ্যমে পাঠানোর চেষ্টা করছে পাকিস্তানে অবস্থিত পাক চর সংগঠনগুলি।’

সেনা জওয়ানদের এই বিষয়ে সচেতন করার বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে ভারতীয় সেনা। সেনা ও আধাসেনার সদস্যদের শুধুমাত্র ‘mygov.in’ ওয়েবসাইট থেকে বৈধ লিঙ্কের মাধ্যমেই ‘আরোগ্য সেতু’ অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কোন অজানা সূত্র থেকে আরোগ্য সেতু অ্যাপ যাতে কেউ ডাউনলোড না করে সেই বিষয়ে সাবধান করে দিয়েছে সেনা। কেবলমাত্র সরকারি ওয়েবসাইট অথবা গুগল প্লে স্টোর বা অ্যাপেল প্লে স্টোর থেকেই যাচাই করে আরোগ্য সেতু ইন্সটল করতে হবে।

সেই সঙ্গে বলা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া সাইট গুলিতে বা ইমেলে সন্দেহজনক লিঙ্ক গুলি ক্লিক না করতে। ফোন থেকে ইমেল করার সময়ে চরম সাবধানতা অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কথা প্রসঙ্গে ভারতীয় সেনার চিফ জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে বলেন, “ভারত তথা সারা বিশ্ব যেখানে করো’না ভাই’রাসের সঙ্গে লড়ছে সেখানে পাকিস্তান ভারত ও বিশ্বজুড়ে আ’তঙ্ক ছড়ানোয় ব্যস্ত।” ভারতীয় গোয়েন্দাদের মতে এই অ্যাপটির কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সার্ভারটি আছে নেদারল্যান্ডসে।

কীভাবে এই ভুয়ো আরোগ্য সেতুর মাধ্যমে প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য হাতানোর চেষ্টা হচ্ছে? গোয়েন্দা বিভাগ জানিয়েছে, ইনস্টলেশন চলাকালীন জাল অ্যাপটি ব্যবহারকারীকে ইন্টারনেট ব্যবহার এবং অতিরিক্ত অ্যাপ্লিকেশন প্যাকেজ ডাউনলোডের অনুমতি দিতে বলে। সেই অনুমটি পেলেই তারপরে ব্যবহারকারীর অজান্তেই তার মোবাইলে কিছু ক্ষতিকর লিঙ্ক বা ভাই’রাস সফটওয়্যার ইনস্টল হয়ে যায়। পরে ওই ভাই’রাসগুলির মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের ফোনে পাক হ্যাকার নজরদারি চালাতে পারবেন। হ্যাকার-এর কাছে ফোনে থাকা যাবতীয় তথ্য চলে যাবে।

সূত্র –