অনলাইনে প্রতা’রণার শিকার হলেন যুবক, জি’গোলোর কাজ দেবে বলে প্রায় ৪ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিল এক সংস্থা

0
254

মহিলা দেহ ব‍্যবসায়ী নিয়ে চর্চার শেষ নেই। বিপুল অঙ্কের ব্যবসা চলছে বিশ্বজুড়ে। কিন্তু জানেন কি, ভারতের যুব সমাজের একটা বড় অংশ পেশা হিসেবে বেছে নিচ্ছে দেহ ব্যবসাকে। হ্যাঁ, দিল্লি-সহ দেশের বিভিন্ন বড় শহরের উচ্চশিক্ষিত যুবকরাও হয়ে যাচ্ছেন পেশাদার জি’গোলো। LinkedIn-সহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন দিয়েই পুরোদস্তুর পেশাদার ভাবে দেহ ব্যবসা করছেন তাঁরা। দিল্লির এক যুবকের কথায়, ‘কোনও মাসে ২ থেকে ৩ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় হয়ে যায়। জিনিসের যা দাম। রোজগার ভালো না-হলে বাঁচব কী করে?’

এমনই লোভে পরে গত মাসে একটি ডেটিং সাইটে নাম নথিভুক্ত করেছিলেন ২৩ বছরের এক যুবক। জি’গোলো হিসেবে কাজ করতে চেয়েছিলেন তিনি। তবে তিনি যে প্রতা’রণার জালে জড়াচ্ছেন, তা আঁচ করতে পারেননি। তাঁকে খোয়াতে হয়েছে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা।

প্রতীকী ছবি

মুম্বইয়ের বোরিভালির ঘটনা। পুলিশ জানিয়েছে, গত বছর নভেম্বরে পর্যনট কোম্পানিতে নিজের চাকরি ছাড়েন হোটেল ম্যানেজমেন্টে স্নাতক ওই যুবক। এরপর অনলাইনে চাকরি খুঁজতে খুঁজতে ২৩ ডিসেম্বর তাঁর স্ক্রিনে ভেসে ওঠে ওই ডেটিং ওয়েবসাইট। সেখানে বহু মহিলার ছবি দেওয়া ছিল। আর নাম নথিভুক্ত করার জন্য একটি বাটন দেওয়া ছিল। দহিসরের পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, ‘ছেলেটি ওই বাটনে ক্লিক করে নিজের যাবতীয় তথ্য দিয়ে ওয়েবসাইটটি বন্ধ করে দেন।’ পরের দিন এক মহিলা তাঁকে ফোন করে। নিজেকে ওই ওয়েবসাইটের কর্মী রিয়া বলে দাবি করে সে। সে ছেলেটিকে মোটা মাইনেতে জি’গোলোর চাকরির প্রস্তাব দেয়।

প্রতীকী ছবি

তিনি এই প্রস্তাবে রাজি হয়ে গেলে, তাঁকে রেজিস্ট্রেশনের জন্য ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ১,০২৫ টাকা ট্রান্সফার করতে বলা হয়। টাকা পাঠানোর পর তিনজন ক্লায়েন্টের ছবি পাঠিয়ে ছেলেটিকে পছন্দ করতে দেওয়া হয়। ওই অফিসার জানিয়েছেন, ‘রিয়া ছেলেটিকে বলে, ৩ ঘণ্টা কাজের জন্য তাঁকে ২ লাখ টাকা দেওয়া হবে। এরপর ওই ক্লায়েন্টের সঙ্গে তাঁর কথা বলিয়ে দেয় রিয়া।’ এরপর সে ছেলেটিকে মেম্বারশিপ আইডি, প্রসেসিং ফি, রিফান্ড অ্যাসুরেন্স-সহ সিকিউরিটি ডিপোডিজ হিসেবে প্রায় সাডে ৩ লক্ষ টাকা দিতে রাজি করিয়ে ফেলে।

প্রতীকী ছবি

তার আগে এই প্রতারিত যুবক এক জি’গোলো বন্ধুর থেকে শোনে, LinkedIn-এ প্রোফাইল থেকে প্রচুর কাজের সুযোগ আসে। প্রচুর মহিলা ভালো দাম দিয়ে বুক করেন তাঁকে। ‘আমি MBA করেছি। কিন্তু MBA-এর পর যা চাকরি পেয়েছিলাম, তার তিনগুণ বেশি রোজগার করি জি’গোলো হিসেবে। আমি কাজটাকে উপভোগ করি। কোনও ক্ষোভ নেই।’ একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ভারতে জি’গোলোদের কয়েক হাজার প্রোফাইল রয়েছে LinkedIn-এ।

প্রতীকী ছবি

৩১ ডিসেম্বর ছেলেটি ক্লায়েন্টের সঙ্গে দেখা করিয়ে দিতে বলে রিয়াকে। তখন সে আরও টাকা চায়। যুবক দিতে রাজি না-হওয়ায়, তাঁর পরিবারকে সব জানিয়ে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেয় রিয়া। তখন ছেলেটি বুঝতে পারেন যে তিনি প্রতারণার শিকার। তিনি পুলিশে অভিযোগ জানান। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

সূত্র – এই সময়