৩৬ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া দম্পতির দেখা হল বৃদ্ধাশ্রমে, সিনেমাকেও হার মানাবে এই ঘটনা

0
81

এ যেন ঠিক সিনেমার গল্পের মতো। শাহরুখ-প্রীতি অভিনীত ‘বীর-জারা’ ছবিতে বহু বছর পরে প্রেমিক-প্রেমিকা যুগলের পুনর্মিলনের কাহিনি সকলেরই দেখা। প্রায় তেমনই ঘটনা দেখা গেল বাস্তবে। রুপোলি পর্দাকেও হার মানায় এই ঘটনা। জীবননান্দ দাশের কবিতায় ছিল ‘আবার বছর কুড়ি পরে তার সাথে দেখা হয় যদি!’ কেরলের  এক বৃদ্ধাশ্রমে ৯০ বছরের সাইদু ও ৮২ বছরের সুভদ্রার দেখা হল প্রায় ৩৬ বছর পরে। এই খবর প্রকাশ করে এক সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ‍্যম NDTV বাংলা

৬৫ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল তাঁদের। তারপর একসময় বিচ্ছি‌ন্ন হয়ে পড়া। এতদিন পরে আবারও মুখোমুখি দু’জন! ত্রিসুর জেলার পুলুটের কাছে এক বৃদ্ধাশ্রমে ঘটল তাঁদের পুনর্মিলন। গত জুলাইয়ে এখানে আসেন সুভদ্রা। পরের মাসে আসেন সাইদু।

৩৬ বছর পর তাঁর কণ্ঠস্বর শুনে চেনা চেনা মনে হয় সুভদ্রার। তারপরই আবিষ্কার করেন সময়ের চোরাগলি পেরিয়ে আবারও তিনি তাঁর স্বামীর মুখোমুখি। আবদুল করিম, যিনি বৃদ্ধাশ্রমের তদারকি করেন তিনি বলছেন, ‘‘ওঁরা ৩৬ বছর পর একে অপরকে দেখছিলেন। এই বয়সে এসে সকলেরই দৃষ্টিশক্তি ফিকে হয়ে আসে। কিন্তু তাঁদের একে অপরকে চিনতে কোনও ভুল হয়নি।” চাকরির খোঁজে উত্তর ভারতে গিয়েছিলেন সাইদু। ততদিনে বিয়ের ৩০ বছর হয়ে গিয়েছে। কিন্তু সাইদু আর ফিরে আসেননি। অপেক্ষায় থাকতে থাকতে ক্লান্ত হয়ে পড়ে পাড়ার এক প্রতিবেশী মুসলিমকে বিয়ে করেন সুভদ্রা। তখন তাঁর দুই পুত্র রয়েছে। কালক্রমে সকলেই মারা গিয়েছেন।

করিম সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে জানাচ্ছেন, এক মন্দির প্রাঙ্গনে অসুস্থ হয়ে পড়েন নিঃসঙ্গ সুভদ্রা। তখন তাঁকে হাসপাতালে চিকিৎসার পর এই বৃদ্ধাশ্রমে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। শেষ পর্যন্ত সেখানেই অভিনীত হল তাঁর জীবননাট্যের এমন এক পর্ব। বৃদ্ধাশ্রমের সকলে যখন জানতে পারেন এই ঘটনা, সেখানে খুশির তরঙ্গ বয়ে যায়। মিষ্টি বিতরণ শুরু হয়। এই খুশির মুহূর্তে সুভদ্রা একটা গান করেন। করিম জানিয়েছেন, দু’জনই এখন খুব খুশি। বাকি জীবনটা একসঙ্গেই কাটাতে চান তাঁরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here