মানুষের পর এবার বাঘ আক্রান্ত করো’নায়, শুকনো কাশি দিচ্ছে সিংহ – আলিপুর চিড়িয়াখানার কর্মীরাও পরছেন PPE

0
372

মানুষের পর পোষা কুকুর ও বিড়ালের শরীরে করো’না ভাই’রাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছিল। তবে এবার প্রথম বাঘের শরীরে ধরা পড়লো করো’না ভাই’রাস। শুধু একটি বাঘ নয়। নিউইয়র্কের ব্রঙ্কস চিড়িয়াখানায় একাধিক বাঘের শরীরে করো’নার উপসর্গ দেখা গেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের এগ্রিকালচার বিভাগের ভেটেনারি সার্ভিস ল্যাবরেটরি। আপাতত বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ওই চিড়িয়াখানা। নিউইয়র্কের ব্রঙ্কস চিড়িয়াখানায় একাধিক বাঘ ও সিংহকে সম্প্রতি অসুস্থ হয়ে পড়তে দেখা যায়।

প্রত্যেকেরই শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এরপর ওই বাঘটিকে পরীক্ষা করা হয়। চার বছর বয়সী মালয়েশিয়ান বাঘটির নাম নাদিয়া। চিড়িয়াখানার তিন আফ্রিকান সিংহেরও একই ধরনের শুকনো কাশির সমস্যা হয়েছে।

এর পরেই নড়েচড়ে বসেন চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। বাঘ ও সিংহদের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। আর তাতেই কো’ভিড নাইন্টিন পজিটিভ রিপোর্ট আসে নাদিয়ার। ব্রঙ্কস্ চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের তরফে একটি বিবৃতিতে জানানো হয়, “দীর্ঘদিন শারীরিক সমস্যা দেখা দেওয়ায় সাবধানতার কারণেই বাঘেদের লালারসের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। এর ফলে করো’না ভাই’রাস সম্পর্কে আমাদের কিছু অজানা থাকলে সেটাও জানা সম্ভব।” আপাতত চিকিত্সার ফলে কিছুটা ভাল আছে বাঘ ও সিংহগুলি। ভয়ের কোনও কারণ নেই বলেই জানিয়েছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। তবে, শরীর ভাল না থাকায় খাওয়াদাওয়ায় একটু অরুচি দেখা গেছে বাঘ ও সিংহগুলির মধ্যে।

প্রতীকী ছবি

আক্রান্ত বাঘকে গভীর পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে এবং দ্রুতই সেরে উঠবে বলে আশা করা হচ্ছে। তবে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ আশ’ঙ্কা করছে, সেখানকারই একজন কর্মী ভাই’রাসের বাহক ছিলেন। যদিও তাঁর মধ্যে কোন লক্ষণ দেখা যায়নি। ওই কর্মীই আক্রা’ন্ত বাঘের দেখাশোনা করতেন। ব্রংস জু ১৬ মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে। যদিও পশুর শরীরে এই রোগ কতটা ভয়াবহ, বা কীভাবে পশুর শরীরে এটি ছড়ায়, সে সম্পর্কে নিশ্চিত নন চিকিৎসকরা। তবে, ওই চিড়িয়াখানার পশু চিকিৎসকদের দাবি যাদের শরীরে এই রোগের উপসর্গ দেখা গিয়েছে তাঁরা সকলেই দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবে।

করো’না ভাইরা’সের আত’ঙ্ক এখন বিশ্বজুড়ে। সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা হিসেবে একাধিক ফরমান জারি করেছে প্রতিটি দেশ। এতদিন শুধুমাত্র মানুষের শরীরে করো’না ভাই’রাসের প্রভাব দেখা গেছিল। কিন্তু নিউ ইয়র্ক চিড়িয়াখানায় বাঘের শরীরে করো’না ভাই’রাসের সন্ধান পাওয়ার খবর নতুন উদ্বেগের সঞ্চার হয়েছে সারা বিশ্বের কাছে। এবার থেকে আলিপুর চিড়িয়াখানায় পশু-পাখিদের খাঁচায় পিপিই পোশাক পরে ঢুকবেন কর্মীরা। নিউ ইয়র্ক চিড়িয়াখানায় বাঘের শরীরে করো’না ভাই’রাস মেলার পর অতিসর্তকতা মূলক এই ব্যবস্থা গ্রহণ করল রাজ্য বনদফতর। তবে শুধুমাত্র আলিপুর নয়, রাজ্যের সব চিড়িয়াখানাতেই পিপিই ব্যবহার করবেন কর্মীরা।

প্রতীকী ছবি

ঠিক হয়েছে যে সকল কর্মী সরাসরি পশু পাখিদের সংস্পর্শে আসেন তারা পিপিই পড়ে খাঁচার ভেতর প্রবেশ করবেন। খাবার দিতে হোক বা পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য হোক সব সময় পড়তে হবে এই বিশেষ পোশাক। খাঁচায় ঢোকার সময় পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট মেশানো জলে পা ডুবিয়ে প্রবেশ করতে হবে। পশুপাখিদের নাইট সেল্ফ গুলোকে দিনে দু’বার করে কীটনাশক দিয়ে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে।

সূত্র

যে খাবার বাঘ সিংহদের দেওয়া হচ্ছে সেগুলো দেওয়ার আগে চিড়িয়াখানার ডাক্তাররা পরীক্ষা করে দেখছেন। পশু খাঁচায় থাকা সিসি টিভি ক্যামেরার মাধ্যমে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি চালানো হচ্ছে পশুপাখিদের উপর। আলিপুর চিড়িয়াখানা হাসপাতালেও দিনে দু’বার করে স্যানিটাইজ করা হচ্ছে। বনমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চিড়িয়াখানা জুড়ে জীবানু নাশের জন্য ভিক্রন এস স্প্রে করা হচ্ছে।’

সূত্র –