‘সহবাসে অক্ষম’! স্ত্রীর অভিযোগ মিথ্যে প্রমাণ করতে অন্য মহিলার সঙ্গে সহবাসের ভিডিও পাঠালেন স্বামী

0
1410

প্রতিদিনই নানাধরণের অপরাধমূলক ঘটনা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে আমাদের চোখে পড়ে কিন্তু চেন্নাইয়ে এমনই এক আশ্চর্যজনক ঘটনা ঘটেছে যেটা শুনলেন আপনিও অবাক হয়ে যাবেন। আসলে এক মহিলা তার স্বামীর বিরুদ্ধে নপুংসকতার অভিযোগ এনেছেন বিবাহ বিচ্ছেদ করার জন্য এবং সেই ঘটনা আদালত অবধি গড়িয়েছে। স্বামীর পুরুষত্বের উপর প্রশ্নচিহ্ন ওঠাতে তিনি এমন কাজ করলেন, যে তাকে জেল অবধি যেতে হল। ওই ব্যক্তি অন্য এক মহিলার সাথে শারীরিক সম্পর্কের ভিডিও তৈরি করে সেটি তার শ্বশুরকে পাঠিয়ে দেন।

ঘটনা কি ঘটেছিল?

রিপোর্ট অনুযায়ী এই ঘটনা হায়দ্রবাদের লাল বাহাদুর এলাকায় ঘটেছে। এই এলাকার বাসিন্দা অভিযুক্ত বিবাবসুর সাথে মুতামিজ নগর এলাকার অনুষার বিয়ে হয় দু বছর আগে ২০১৬ সালে।

পুলিশ আধিকারিক জানান, বিয়ের পর বিবা আর অনুষা ১৫ দিনের মত একসাথে ছিলেন এরপর তাদের মধ্যে কোনো কারণবশত ঝগড়া হয় এবং অনুষা তার মা-বাবার কাছে চলে যায়। তারপর সে তার স্বামীর কাছে ফিরে আসতে কিছুতেই প্রস্তুত ছিল না।

পরিবারের লোকজন চেষ্টা করেছিলেন সমস্যা সমাধানের

এমকেবি নগর এলাকার পুলিশ ইন্সপেক্টর ডি. চিত্রা জানান বিয়ের ঠিক পরেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার সূত্রপাত হয়। অনুষা কোনো প্রকারে ১৫ দিন তার শ্বশুরবাড়িতে কাটায়, তারপরই সে তার বাবা-মার কাছে ফিরে আসে। অনুষা কোনোমতেই তার শ্বশুরবাড়ি ফিরে যেতে রাজি ছিল না। যদিও দুই পরিবারের তরফ থেকেই চেষ্টা করা হয়েছিল, কিন্তু অনুষা আর বিবা তাদের সমস্যা সমাধানের জন্য কোনোমতেই রাজি ছিল না।

বিবাহ বিচ্ছেদের প্রস্তাব

মহিলা পুলিশ ইন্সপেক্টর জানান, দুজনেরই পরিবারের সদস্যরা তাদের ঝামেলা মিটিয়ে নেওয়ার কথা বলেন কিন্তু অনুষা তার স্বামীর কাছে আসতে রাজি হয়নি।

এরপর অনুষার পরিবারের তরফ থেকে কোর্টে বিবাহ বিচ্ছেদের আর্জি জানানো হয় এবং অনুষা সেখানে অভিযোগ করেন যে, তার স্বামী নপুংসক, এই কারণেই তিনি তার স্বামীর সাথে থাকতে চান না।

নপুংসকতার অভিযোগে বিবাহ বিচ্ছেদ

অনুষার পরিবার আদালতে বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদন জানায় এবং অনুষার অভিযোগ ছিল তার স্বামী সহবাসে অক্ষম। এই কথা যখন অনুষার স্বামী বিবা জানতে পারে, তখন সে রীতিমত রেগে যায়। নিজের উপর আসা অভিযোগ মিথ্যে প্রমাণ করতে সে অন্য একটি মহিলার সাথে শারীরিক সম্বন্ধ করে এবং সেটির ভিডিও করে। মহিলা ইন্সপেক্টর জানান, শারীরিক সম্বন্ধের সময় সেই ঘরে বিবা ও মহিলাটি ছাড়াও অন্য এক উপস্থিত ছিলেন, যিনি সম্পূর্ণ ভিডিওটি রেকর্ড করেন।

স্ত্রী এবং শ্বশুরকে পাঠিয়ে দেন সেই ভিডিও ক্লিপ

বিবাবসু একটি ৫ মিনিটের ভিডিও ক্লিপ তৈরি করে সেটি তার স্ত্রী অনুষা এবং শ্বশুরকে পাঠিয়ে দেন। এরপরই অনুষার পরিবার বিবার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের পর বিবা তার দোষ স্বীকার করে এবং জানায় যে, তার স্ত্রীর অভিযোগ মিথ্যে প্রমাণ করার জন্যই সে এরকম করেছে। পুলিশ তার বিরুদ্ধে আইটি অ্যাক্ট সহ, আইপিসির বিভিন্ন ধারায় কেস দিয়ে অভিযুক্তকে জেল হেফাজতে পাঠিয়ে দেয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here