মাথায় শিং নিয়ে ডাক্তারের কাছে গেলেন এই ব্যক্তি

0
126

সাগর জেলার রাহলি গ্রামের বাসিন্দা শ্যামলাল যাদব কয়েকবছর আগে মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছিলেন। ৭৪ বছরের শ্যামলাল আঘাত পাওয়ার পড়ে দেখেন মাথায় একটি শিং আস্তে আস্তে বড় হচ্ছে। পরবর্তীতে পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে বুঝে তিনি ডাক্তারের শরণাপন্ন হোন। এরপর ডাক্তার জানায়, এটি ত্বকের একটি বিরল রোগ। সাধারণত রোদ্রে কঠোর পরিশ্রম করলে এ ধরনের রোগ হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

চিকিৎসকদের পরিভাষায় এর নাম ডেভিলস হর্ন’ বা ‘‌শয়তানের শিং।‌ সাগর ভাগ্যদয় তীর্থ হাসপাতালের চিকিৎসকরা এরপর শ্যামলালের অস্ত্রোপচার করার সিদ্ধান্ত জানায়।

প্রবীণ কৃষকটি বলেন যে এই শিং-টি খুব তাড়াতাড়ি শক্ত হয়ে ওঠে এবং বাড়তে থাকে তাই তাকে সার্জনদের সাহায্য নিতে হয়েছিল।

চিকিৎসকরা বলেন এটি সেবেসিয়াস হর্ন, এটি এক প্রকারের টিউমার প্রায়শই সৌম্য এটি ত্বক এবং নখের কের্যাটিন থেকে গঠন করে। এগুলি সাধারণত মুখ, হাত, কান এবং নখের উপরে বেড়ে যায় এবং বিরল ক্ষেত্রে এগুলি কোনও পুরুষের লিঙ্গে বেড়ে যায় বলে দেখা গেছে।

ভারতের সাগর শহরের ভাগ্যোদয় তীর্থ হাসপাতালের নিউরো সার্জনরা ‘শয়তান শিং’ গলদা সরিয়ে এখন সে সুস্থ হয়ে উঠছে। সার্জন ডাঃ বিশাল গজভিয়ে বলেছিলেন: “প্রায় পাঁচ বছর আগে রোগীর মাথায় আঘাত লেগেছিল এবং তার পরে গোঁড়া বাড়তে শুরু করে। “প্রথমদিকে, তিনি এটিকে উপেক্ষা করেছিলেন কারণ এটি কোনও অস্বস্তি তৈরি করে না এছাড়াও, স্থানীয় নাপিত এটিতে জীবানু যুক্ত ক্ষুর চালনা করায় এটি বৃদ্ধি পেয়েছিল। তবে, যখন গলদা শক্ত হয়ে আরও বাড়তে শুরু করল, তখন তিনি সাগরের হাসপাতালের কাছে গেলেন।”

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here