এবার লকডাউনে বাড়িতে মদ পৌঁছে দেবার ব‍্যবস্থা করলো সরকার

0
301
প্রতীকী ছবি

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে মঙ্গলবার জানিয়ে দিয়েছেন মধ্যরাত থেকে ২১ দিনের লকডাউনের খবর ৷ এই অবস্থায় কী ভাবে কী পরিষেবা পাওয়া যাবে তা নিয়ে নানা প্রশ্ন নানা ধোঁয়াশা ৷ এই অবস্থায়ে কেরলে বিক্রি হচ্ছে মদ। পাঞ্জাব আর কেরলে সব রকমের পানিয়কে অত্যাবশ্যকীয় জিনিসের তালিকায় রেখেছে। মদ বিক্রি অনুমতিকে সঠিক বলে জানিয়েছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন।

এবার লকডাউনে বাড়ি বাড়ি মদ পৌঁছে দেবে কেরলের সিপিএম সরকার। এমনিতেই লকডাউনের পর থেকে মদ নিয়ে কেরালায় বিস্তর নাটক হয়েছে। সবার জন্য নয় অবশ্য। যাঁরা নাকি মদ বিনা উইথড্রয়াল সিনড্রোমে ভুগছেন তাঁদের জন্য এই ব্যবস্থা।

প্রতীকী ছবি

একজন লোক সপ্তাহে তিন লিটার করে মদ পাবেন। কেন্দ্রীয় সরকার অত্যাবশ্যক পণ্য ছাড়া সব দোকান বন্ধ করার আর্জি জানালেও দিব্যি খোলা ছিল মদের দোকানগুলি। সেখানে লাইন দিয়ে মদ কিনেছেন মানুষ এমন ছবিও উঠে এসেছে বারবার। শেষে চাপে পড়ে দোকান বন্ধ করলেও শুরু হয়েছে নতুন সমস্যা। কিছু মানুষ নাকি এই দুঃসময়েও মদ ছাড়া মোটে থাকতে পারছেন না। উইথড্রয়াল সিনড্রোম হচ্ছে তাঁদের।

সূত্র

এছাড়াও মেঘালয় সরকারের পক্ষ থেকে বলে হয়েছে স্বাস্থ্যের জন্য চাহিদা অনুযায়ী মদ হোম ডেলিভারি করবে সরকার। সোমবার মেঘালয় সরকারের ডেপুটি সেক্রেটারি, আবগারি, রেজিস্ট্রেশন, ট্যাক্সেশন এবং স্ট্যাম্প বিভাগের এক আদেশে এই বিষয়টি প্রকাশিত হয়েছে। এই আদেশে, মেঘালয় ডেপুটি সেক্রেটারি বলেছে, “মেডিকেল প্র্যাকটিশনার কর্তৃক জারি করা উপযুক্ত মেডিকেল প্রেসক্রিপশনের ভিত্তিতে স্বাস্থ্যের প্রয়জনে বাড়িতে মদ সরবরাহের অনুমোদন দিয়েছে মেঘালয় সরকার।”

সূত্র

নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, “আগামী আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত শুল্কাধীন হাউসগুলিকে অনুমতি দেওয়া হবে জরুরি ভিত্তিতে মদ বিক্রির এবং হোম ডেলিভারি করার জন্য আগামী ১৪ এপ্রিল ২০২০ মধ্যরাত্রি পর্যন্ত।” নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে “ক্রেতাকে শুল্কাধীন সংস্থার কাছ থেকে বাড়িতে মদ হোম ডেলিভারি নিতে হলে লগ ইন করে মেডিকেল প্রেসক্রিপশন আপলোড করতে হবে। সেই জেলার দায়িত্বে থাকা আবগারি অফিসার ও অনুমোদনকারী সংস্থার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তার অনুমতি নিয়ে এবং সমস্ত বকেয়া পরিশোধের পরই গ্রাহককে মদ দেওয়া হবে।”

প্রতীকী ছবি

সেই জন্যই বাড়ি বাড়ি মদ পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা। চিকিৎসকরা সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছেন। বুধবার প্রতিবাদ স্বরূপ কালো ব্যাচ পড়ে ডিউটি করেন তাঁরা। কিছু চিকিৎসক এবং সমাজকর্মী এই বিষয়ে আদালতে আবেদন করার সিদ্ধান্তও নিয়েছেন। কিন্তু, কেরলের বামপন্থী সরকারের এহেন কার্যকলাপে বিতর্কও তৈরি হয়েছে।

সূত্র

আবগারি কমিশনার অনুরোধ করেছে ” গ্রাহকদের অনুরোধের ভিত্তিতে স্বাস্থ্যের জন্য মদ হোম ডেলিভারি করার জন্য অনুমদিত সংস্থাগুলি তাদের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রদান করার জন্য।” সরকারের পরবর্তী নির্দেশে আরও বলা হয়েছে, শুল্কাধীন সংস্থাগুলি অতিরিক্ত পরিষেবা দেওয়ার জন্য মূল্য আদায় করতে পারে। ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে সর্বাধিক ১০০ টাকা এবং ১৫ কিলোমিটারের বেশি হলে ২০০ টাকা ধার্য করতে পারে।

সূত্র –