সাততলা হাসপাতালের আইসোলেশন থেকে বিছানার চাদর বেয়ে পালাতে গিয়ে পরে গেলেন রোগী

0
390

করোনাভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ ও সম্ভাবনা থাকায় তাঁকে রাখা হয়েছিল আইসোলেশন ওয়ার্ডে। পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল লালারসের নমুনাও। কিন্তু, রিপোর্ট আসার আগেই হাসপাতালের জানালা দিয়ে চাদর বেঁধে পালাতে গিয়ে পরে গিয়ে প্রাণ হারালেন এক ব্যক্তি। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্জাবের কর্নলে। গত ১ এপ্রিল হাসপাতালে আনা হয় বছর ৫৫-এর ওই ব্যক্তিকে। ভোরের আলো ফোটার আগেই হরিয়ানার কারনালে কল্পনা চাওলা মেডিক্যাল কলেজে চাঞ্চল্য।

হাসপাতালের সাত তলার আইসোলেশন থেকে পালাতে গিয়ে পড়ে মর্মান্তিক মৃত্যু হল এক ব্যক্তির। পুলিশ আধিকারিকরা জানান, “কাউকে কিছু না জানিয়ে আইসোলেশনের জানলা থেকে চাদর, প্লাস্টিকের প্যাকেটকে বেঁধে তা দড়ির মত ঝুলিয়ে দিয়ে হাসপাতালের দেওয়াল বেয়ে নামার চেষ্টা করেছিলেন তিনি।

চিকিৎসকরা জানান, ব্যক্তির শরীরে করোনার উপসর্গ সেভাবে না থাকলেও অন্যান্য রোগের উপসর্গ থাকায় তাঁকে আইসোলেশনে রাখা হয়। মৃত ব্যক্তির কোভিড-১৯ (COVID-19) পজিটিভ রয়েছে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। শেষবার করা তাঁর রক্তের রিপোর্ট এখনও আসেনি। তাঁর মৃত্যুর পরে আইসোলেশন ওয়ার্ডের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। কীভাবে সবার নজর এড়িয়ে ওই রোগী বিছানার চাদর বেঁধে ফেললেন তাই নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন অনেকে। আবার রোগীদের মধ্যে মানসির প্রবৃত্তি নিয়েও উঠছে প্রশ্ন।

সূত্র –