সোশ্যাল মিডিয়ায় মেয়েদের টোপ বিক্রমের, মধুমিতার ২৮টা প্রোফাইল

0
941

পরিসংখ্যান বলছে, ফেসবুক না কি ২০১৭ সালে পাক্কা ১ বিলিয়ন ফেক প্রোফাইল উড়িয়ে দিয়েছে । ইনস্টাগ্রাম নিয়েছে বিশেষ বন্দোবস্ত- ফলোয়িং রিকোয়েস্ট ভেরিফিকেশন সিস্টেম চালু করেছে ! পিছিয়ে নেই টুইটারও- রিপোর্টিং সংক্রান্ত কিছু ব্যাপার আপডেট করা হয়েছে সেখানেও । তার পরেও টলিউডের সেলেব্রিটিরা ভুগছেন ফেক প্রোফাইলের ধাক্কায়…

খবর তো তাই বলছে ! এ ব্যাপারে সবার আগে নাম তোলা যেতে পারে বিক্রম চট্টোপাধ্যায়ের । তাঁর নামে না কি সোশ্যাল মিডিয়ায় গুচ্ছের ফেক প্রোফাইল আছে । সেই সব ফেক প্রোফাইলে তাঁর ছবি, এমনকি ভিডিও ক্লিপ এডিট করে মেয়েদের কাছে নানা কুপ্রস্তাব যায় !

গত বছরেই এমন এক নকল প্রোফাইলের পিছনে থাকা ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর করেছিলেন বিক্রম । তাতেও যে লাভ হয়েছে, এমনটা বলা যাচ্ছে না । “এরা ছবি থেকে শুরু করে ক্যাপশন পর্যন্ত এত নিখুঁত ভাবে কপি করে যে আসলে-নকলে তফাত বোঝা যায় না । আমার টুইটার অ্যাকাউন্টটায় অবশ্য ব্লু টিক আছে, কাজেই ওখানে খাপ খোলা যাবে না । সমস্যা ফেসবুক আর ইনস্টাগ্রামটা নিয়ে । দেখি কত দিনে ভেরিফায়েড হয়”, বলছেন বিক্রম ।

বিক্রমের চেয়েও বেশি খারাপ অবস্থা ‘কুসুম দোলা’ ধারাবাহিকের মধুমিতা চক্রবর্তীর- তাঁর নামে ২৮টার কাছাকাছি ফেক প্রোফাইল আছে ! ২০১৬ সালে মধুমিতা তাঁর স্বামী সৌরভ চক্রবর্তীকে নিয়ে লালবাজারের সাইবার ক্রাইম সেলে লিখিত অভিযোগ দায়ের করতেও বাধ্য হয়েছিলেন । “খবর ছড়িয়েছিল এক ওয়েবসাইট মারফত আমার ছবি মর্ফ করে- গোয়ার এক মধুচক্র থেকে পুলিশ আমায় গ্রেফতার করেছে ! তার পর থেকে যতটা সম্ভব সাবধানে থাকি”, জানিয়েছেন মধুমিতা ।

যদিও কম বয়সীরা নন, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মতো বর্ষীয়ান অভিনেতাও পড়েছেন এক সমস্যায় । বৃহস্পতিবারেই তাঁর মেয়ে পৌলোমী বসু বাবার ফেক সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল দেখে লালবাজারের সাইবার ক্রাইম সেলের দ্বারস্থ হতে বাধ্য হয়েছেন । “বুঝি না এ সব করে লোকজন কী আনন্দ পায় । অবিলম্বে এ সব বন্ধ হওয়া উচিত”, দাবি পৌলোমীর ।