গ্যালারি মাতালেন ৮৭-র ‘তরুণী’, সাথে মনটাও জয় করে নিলেন ভারতীয় খেলোয়াড়দের

0
420

এই এজবাস্টনেই ইংল্যান্ডের কাছে হেরে গিয়েছিল ভারত। মঙ্গলবার সেই মাঠেই বাংলাদেশকে ২৮ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পৌঁছে গেল ভারত। সেইসঙ্গে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল বাংলাদেশ। ৩১৫ রানের তাড়া করতে নেমে ২৮৬ রানে থামল বাংলাদেশের ইনিংস। রোহিত শর্মার সেঞ্চুরি। বল হাতে দুরন্ত বুমরাহ, পান্ডিয়ারা। মঙ্গলবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ২৮ রানে জিতে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ভারত। ক্রিকেট বিশ্বকাপের ইতিহাসে এই নিয়ে সপ্তমবার সেমিফাইনাল খেলবে ভারত।

স্বভাবতই এখন উৎসবের মেজাজে টিম ইন্ডিয়ার ক্রিকেটাররা।

কিন্তু মঙ্গলবার বার্মিংহ্যামে সবাইকে ছাপিয়ে গিয়েছেন একজন ৮৭ বছরের বৃদ্ধা। এই বয়সেও গোটা ম্যাচ জুড়ে যেভাবে বাঁশি বাজিয়ে, চিৎকার করে, ভারতের জাতীয় পতাকা হাতে টিম ইন্ডিয়াকে সমর্থন করলেন, তাতে মুগ্ধ প্রত্যেকেই। বার্মিংহ্যামের মন জিতলেন ৮৭ বছরের চারুলতা প্যাটেলই।

কখনও বাঁশি বাজিয়ে, আবার কখনও বা বাকি ফ্যানদের সঙ্গে নেচে গেয়ে, গলা ফাটিয়ে সারাক্ষণ ধরেই গ্যালারি মাতিয়ে রাখলেন চারুলতা। ৮৭ বছরের বৃদ্ধার এই ‘স্পিরিট’ দেখে অবাক টিম ইন্ডিয়ার ক্রিকেটাররাও।

ম্যাচ শেষে গ্যালারিতে গিয়ে তাঁকে জড়িয়ে ধরেন এদিনের ম্যাচের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ রোহিত শর্মা। আলাদা করে চারুলতাদেবীর সঙ্গে দেখা করে আসেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিও।

ম্যাচের পরে তাঁর কাছে ছুটে গেলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ম্যাচের সেরা রোহিত শর্মাও গিয়ে জড়িয়ে ধরেন তাঁকে। বেশ কিছুক্ষণ চারুলতা দেবীর সঙ্গে কথাও বলেন বিরাটরা। পরে তাঁর সঙ্গে নিজের ছবি পোস্ট করে কোহলি টুইট করেছেন, ‘‘ভক্তদের জানাই আন্তরিক ধন্যবাদ। বিশেষ করে চারুলতা প্যাটেলজিকে।

৮৭ বছর বয়সেও এমন উন্মাদনা এবং আবেগপ্লুত সমর্থক আগে কখনও দেখিনি। প্রমাণ হল বয়স শুধুই একটা সংখ্যা। আবেগই সমস্ত বাধা-বিপত্তিকে অতিক্রম করে এগিয়ে নিয়ে চলে জীবনকে। ওঁর আশীর্বাদ নিয়ে টুর্নামেন্টে এগিয়ে যেতে হবে।’’