দিনে প্রায় চোদ্দ বার স’ঙ্গম, ‘বখাটে’ হাঁসের যৌ’নাঙ্গ কাটলেন ডাক্তারেরা

0
1070

আজব গল্প বটে! যৌ’ন আসক্ত পুরুষ বা মহিলার কথা শোনা যায়, তা বলে হাঁস! যৌ’ন আসক্ত এক হাঁসের কাহিনীই এখন শিরোনামে। কারণ, সম্প্রতি একটি ইনফেকশনের কারণে তাঁর যৌ’নাঙ্গ কেটে বাদ দেওয়া হয়েছে। আর তাই সেই হাঁস এখন আলোচনার মগডালে। ওই হাঁসের মালিক জোশ ওয়াটসন জানিয়েছেন, দিনের একবার বা দুবার বা পাঁচ দশবার যৌ’নমিলন করেও ক্ষান্ত হত না সেই হাঁস।

কমপক্ষে ১২-১৪ বার সে’ক্স করা ছিল তার রোজের কোটা। আর সেই হাঁসেরই পে’নিস অপারেশন করে কেটে বাদ দেওয়া হল। ওয়াটসন আরও জানিয়েছেন যে, ওই হাঁসের নাম রান্ডি ডেভ। পুকুরে তার বন্ধুরা ছিল ডোরা, ফ্রেডা, এডিথ।

আর এদের প্রত্যেকের সঙ্গেই রান্ডির গভীর সখ্যতা। পুকুরে নামলেই বন্ধুদের সঙ্গে জলকেলি করতে দেখা যেত রান্ডিকে। কিছু দিন আগেই রান্ডির পে’নিসে একটি ইনফেকশন দেখা দেয়। আর তারপরই তাকে নিয়ে পশু চিকিৎসকের কাছে ছোটেন ওয়াটসন। প্রথমে কিছু অ্যান্টিবায়োটিক্স এবং পেইনকিলার্স দেওয়া হয়েছিল রান্ডিকে। ডাক্তারদের তরফে বলা হয়েছিল, ওষুধে না সারলে রান্ডির ওই অংশ অ’স্ত্রোপচার করে বাদ দিতে হবে। সঙ্গে ডাক্তারেরা রান্ডির পে’নিস প্রতিনিয়ত ওয়াশ করার পরামর্শও দিয়েছিলেন।

কিন্তু এতেও আখেরে লাভের লাভ কিছুই হয়নি। দিনের পর দিন লাগাতার সে’ক্স করেই চলেছিল রান্ডি ডেভ। অতঃপর ডাক্তারেরা ঠিক করেন যে, অপারেশনই একমাত্র রাস্তা। তবে মূত্র ত্যাগের জন্য ডেভের পে’নিসের এক সেন্টিমিটার বাকি রাখা হয়েছে। জোশ আরও বলছেন, ‘মহিলা হাঁস দেখলেই ও তাদের কাছে ঘেঁষতে চায়। সুযোগ পেলেই সে’ক্স করতে আরম্ভ করে দেয়। কমপক্ষে পাঁচ থেকে দশ বার সে’ক্স করে রান্ডি।’

অপারেশনের পর ওই হাঁসের মালিক জোশ ওয়াটসন বলছেন, ‘ও এখন অনেকটাই ঠিক আছে। তবে মনের দিক থেকে অনেকটাই ভেঙে পড়েছে সে। কারণ ও আদতে পুরোদস্তুর নিম্ফোম্যানিয়াক (সে’ক্সের প্রতি চরম আসক্তি)। প্রচণ্ড সে’ক্স ড্রাইভ রয়েছে ওর।’

সূত্র- এই সময়