বলিউড সেলিব্রিটিদের সবচেয়ে বিত’র্কিত খুল্লামখুল্লা ফটোশুট

0
569

বিত’র্ক আর বলিউড যেন একে অপরের পরিপূরক। বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা অক্ষয় কুমার তো একবার বলেই ফেলেছিলেন “এই ইন্ডাস্ট্রিতে বিত’র্ক হল ‘প্যাকেজ ডিল’। তোমাকে সেটা বুঝতে হবে এবং সেটাকে গ্রহণও করতে হবে।” সত্যিই তাই। তবে শুধু ইন্ডাস্ট্রিকে দোষ দিয়ে লাভ নেই। বহু ক্ষেত্রেই দেখা যায় এই বিত’র্ক গুলি তারকাদেরই তৈরি করা। অনেকে নজরে আসার জন্য বিত’র্ককে জন্ম দেন।

উদাহরণস্বরূপ বলা যেতেই পারে শার্লিন চোপড়া, বীনা কাপুর কিংবা পুনম পাণ্ডের নাম। এই তারকা নিজেদের খোলামেলা পোশাক, ন’গ্ন ফ’টোশুট ইত্যাদির মাধ্যমে খবরে থাকতে চান। বলিউডের অভিনেতা অভিনেত্রীরা শুধুমাত্র বিনোদন শিল্পের কারিগর নন, তারা যুব সমাজের আদর্শ অনুপ্রেরণাও বটে। তাই তাদের দায়িত্বটাও অনেক বেশি। কিন্তু তবুও কিছু তারকা যাঁরা জানেন না কোথায় দাঁড়ি টানতে হয়। আর তার জেরে খবরে আসতে গিয়ে শিল্পের নামে কু’রুচি’পূর্ণ সব ফ’টোশুটে গা ভাসান তারা।

কিন্তু যুব সমাজের কথা ভেবে এধরণের কিছু করার আগের তাদের দ্বিতীয়বার নিজের কাজ নিয়ে ভাবা উচিত নয় কি? বলিউড সেলেবদের সবচেয়ে বিত’র্কিত ফ’টোশুটগুলির কয়েকটি নিচের স্লাইডে ক্লিক করে দেখে নিন।

করিশ্মা কাপুর-অক্ষয় খান্না –

একটি পত্রিকার জন্য এই ছবিটি তোলা হয়েছিল। এই ছবিতে অক্ষয় খান্নার হাত যেখানে রয়েছে তার জেরে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল করিশ্মা ও অক্ষয় খান্নাকে।

বীনা মালিক –

এফএইচএম পত্রিকার জন্য পোশাক ছেড়েছিলেন বীনা। নিজের ব’ক্ষযুগল ঢেকেছিলেন টাকা দিয়ে। এই ফ’টোশুটটি প্রচন্ডভাবে সমালোচিত হয়েছিল।

মহেশ ভট ও তার মেয়ে পূজা ভট –

বাবা-মেয়ের চু’ম্বন স্টারডাস্ট পত্রিকার আর একটি ছবি চারিদিকে হইচই ফেলে দিয়েছিল। তা হল পরিচালক মহেশ ভট ও তার মেয়ে পূজা ভটের চোঁটে চু’মু খাওয়ার ছবি। শুধু তখনকার সময় বলে নয়, এই ছবি আজকের যুগেও বিত’র্ক তৈরি করবে। মহেশ ভট তো আরও একধাপ এগিয়ে বলেছিলেন, পূজা তার মেয়ে না হলে তিনি তাকে বিয়ে করতেন।

মমতা কুলকার্নি –

নব্বইয়ের দশকের সে’ক্স সিম্বল ছিলেন মমতা কুলকার্নি। স্টারডাস্ট পত্রিকায় এই ফটোশুটের জন্য চরম সমালোচনার মুখে পড়তে হয় মমতাকে।

শারলিন চোপড়া –

শারলিনের জন্য বিত’র্ক নতুন কথা নয়। প্লে’বয় ম্যাগাজিনের জন্য ফটোশুটে ন’গ্ন হয়েছিলেন শারলিন। এই ছবিটির জন্য তাঁকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল।

মল্লিকা শেরাওয়াত –

এফএইচএম পত্রিকার এই ফ’টোশুটে বিত’র্ককে জন্ম দিয়েছিলেন মল্লিকা।

প্রীতি-ঐশ্বর্য –

প্রীতি জিনটা ও ঐশ্বর্য রাই বচ্চন একে অপরের খুব ভাল বন্ধু। প্রিয় বন্ধুও বলা যায়। কিন্তু দুজনের বিত’র্কিত ফ’টোশুটের জেরে অনেকেরই চোখ কপালে উঠেছিল।

নীতু চন্দ্র –

বলিউডে বেশি সাহসী পদক্ষেপই বিতর্ককে আহ্বাঁ জানায়। ২০০৯ সালে একটি পত্রিকার ফটোশুটে লে’সবি’য়ান থিমে নানা পোজে বেশ রসালো কিছু ছবি উপহার দিয়েছিলেন নীতু। আর তার জেরে বিতর্কের মুখেও পড়তে হয় তাঁকে।

পুনম পান্ডে –

পুনম এমন এক তারকা যাঁর একমাত্র নে’শা বিত’র্ককে জন্ম দেওয়া। ২০১১ সালে পুনম বলেছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দল বিশ্বকাপ জিতলে তিনি সম্পূর্ণ ন’গ্ন হয়ে ছবি তুলবেন। ২০১২ সালে নিজের কথা মতো এই ফ’টোশুটটি করেছিলেন।

অন্তরা মালি –

বলিউডে সেভাবে পা জমাতে না পারলেও একটি পত্রিকার জন্য এই লে’সবি’য়ন ফ’টোশুট করে সবার নজর আকৃষ্ট করেছিলেন অন্তরা।

রেখা –

ফিল্ম মিরর পত্রিকার কভার ছবিতে বিনা পোশাকে রেখা। স্বভাবতই বিত’র্ক সৃষ্টি হয়।

জন-উদিতা –

পাপ ছবিটির জন্য ফ’টোশুটে এই ছবিটির জেরে বিত’র্কের মুখে পড়েন জন ও উদিতা।

কঙ্গনা রানাওয়াত –

অ’ন্তর্বা’স পরে জিকিউ ম্যাগাজিনে কঙ্গনার ফ’টোশুটের জেরে জোর বিত’র্ক তৈরি হয়েছিল।

বিদ্যা বালন –

একটি পত্রিকার ফ’টোশুটে উন্মুক্ত পিঠে এই ধরণের ছবি তুলে শোরগোল ফেলে দিয়েছিলেন বিদ্যা।

বিপাশা-ডিনো –

১৯৯৮ সালে সুইজারল্যান্ডের একটি অ’ন্তর্বা’স সংস্থার বিজ্ঞাপনের জন্য এই ফ’টোশুটটি করেছিলেন বিপাশা বসু ও তাঁর তৎকালীন বয়ফ্রেন্ড ডিনো মরিয়া। এই বিজ্ঞাপনার জেরে তীক্ষ্ণ সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল দুজনকেই।

সূত্র – oneindia