বজ্রপাতের শিকার হয়েও প্রাণে বেঁচে গেছেন এই ১৯ জন মানুষ!

0
1438

আমেরিকাতে প্রতি বছর গড়ে ৩ লাখ মানুষের মধ্যে একজন বজ্রপাতের শিকার হন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বজ্রপাতে আক্রান্ত মানুষগুলি মারা যান। আর তাদের মধ্যে যারা বেঁচে যান সেই মানুষদের ত্বকে এক অদ্ভুত রকমের ট্যাটুর মতো দাগ রয়ে যায়, যেটাকে বলা হয় Lichtenberg figure. কিন্তু এখানেই শেষ নয় ।

বজ্রপাত যে স্থানে আঘাত করে সেই অঞ্চলের উষ্ণতা ৫০ হাজার ডিগ্রি ফারেনহাইট (২৭,৭৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) অবধি হতে পারে। যেটি সূর্যের আভ্যন্তরীণ তাপমাত্রার থেকেও ৫ গুণ বেশি এবং একটি বজ্রপাতে ১ বিলিয়ন ভোল্ট অবধি বিদ্যুৎ থাকতে পারে। এই সংখ্যাগুলি দেখে যে কেউ আতঙ্কগ্রস্ত হবেন, কারণ এই পরিমাণ শক্তি মানুষের কতটা ক্ষতিসাধন করতে পারে।

এই বিদ্যুতের প্রবাহ যখন মানুষের শরীরে প্রবেশ করে তখন, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস এবং স্নায়ুতন্ত্রের মধ্যে দিয়ে যাওয়া ছোটো ছোটো বিদ্যুতের প্রবাহকে শর্ট সার্কিট করে দেয়। যা থেকে হৃৎপিণ্ডের কাজ বন্ধ হয়ে যেতে পারে, স্মৃতিশক্তি লোপ পেতে পারে এমনকি মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডেরও সমূহ ক্ষতি করতে পারে। বিপুল পরিমাণ তাপ, বিদ্যুতের প্রবাহ এবং আলোর কারণে মানুষের দৃষ্টিশক্তিও চিরতরে লোপ পেতে পারে। এছাড়া এটি পুরুষদের বন্ধ্যাত্বের কারণও হতে পারে এবং পুরুষদের যৌনতার অনুভূতিকেও ধ্বংস করে দিতে পারে।

আমেরিকাতে প্রতি বছর গড়ে ৩ লাখ মানুষের মধ্যে একজন বজ্রপাতের শিকার হন।

বজ্রপাতের আঘাতের পরও যারা বেঁচে যান তাদের ত্বকে রয়ে ট্যাটু করার মতো দাগ

এই দাগকে বলা হয় Lichtenberg figure

বজ্রপাত যে স্থানে আঘাত করে সেই অঞ্চলের উষ্ণতা ৫০ হাজার ডিগ্রি ফারেনহাইট (২৭,৭৬০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) অবধি হতে পারে

সূর্যের থেকেও ৫ গুণ বেশি উষ্ণ এটি

একটি বজ্রপাতে ১ বিলিয়ন ভোল্ট অবধি বিদ্যুৎ থাকতে পারে

এই বিদ্যুতের প্রবাহ যখন মানুষের শরীরে প্রবেশ করে তখন, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস এবং স্নায়ুতন্ত্রের মধ্যে দিয়ে যাওয়া ছোটো ছোটো বিদ্যুতের প্রবাহকে শর্ট সার্কিট করে দেয়

এর ফলে হৃৎপিণ্ডের কাজ বন্ধ হয়ে যেতে পারে, স্মৃতিশক্তি লোপ পেতে পারে এমনকি মস্তিষ্ক ও মেরুদণ্ডেরও সমূহ ক্ষতি করতে পারে

বিপুল পরিমাণ তাপ, বিদ্যুতের প্রবাহ এবং আলোর কারণে মানুষের দৃষ্টিশক্তিও চিরতরে লোপ পেতে পারে

এটি চোখের রেটিনায় ছিদ্র করে দিতে পারে, যার ফলে চোখে ছানি পড়তে পারে

এছাড়া এটি পুরুষদের বন্ধ্যাত্বের কারণও হতে পারে এবং পুরুষদের যৌনতার অনুভূতিকেও ধ্বংস করে দিতে পারে

বজ্রপাত যখন শরীরের ত্বকের ভিতর যায় তখন তা Lichtenberg figure তৈরি করে

এটি শরীরের লোহিত রক্ত কণিকাগুলিকে শিরা ও ধমণীর বাইরে বের করে দেয়

২০১১ সালে উইনস্টন কেম্প নামের এক ব্যক্তি বজ্রপাতের শিকার হন

আশ্চর্য্যজনকভাবে তিনি একজন ইলেকট্রিশিয়ানও ছিলেন

তিনি বলেন আমি আমার বাগানের কুমড়ো বাঁচাতে বাইরে গিয়েছিলাম, তারপর আমি ভিতরে ফিরে আসছিলাম

তিনি বলেন, “আমি বুঝতে পেরেছিলাম, আমার বাড়ির পিছনের প্রতিবেশীর বাড়িতে বজ্রপাত হয়েছে। কিন্তু আলোর ঝলকানি আর শব্দ এতটাই বেশি ছিল যে, আমি কিছুই অনুভব করতে পারিনি সেই মূহুর্তে”

“আমি ভিতরে ফিরে এলাম, কিন্তু কিছুই বুঝতে পারিনি। এরপর আমার হাতে একটা কালসিটে দাগ দেখতে পেলাম, সম্ভবত এই দাগগুলি দেখার এক ঘন্টা আগে”

“কিছু ঘন্টা পর থেকেই এটা আমাকে ব্যথা দিতে শুরু করল। আর পরের দিন থেকে বড় বড় ফোসকা হতে শুরু করল। যেগুলি এক সপ্তাহ অবধি বড় হয়েছিল।”

আমেরিকাতে প্রতি বছর গড়ে ২৫ মিলিয়ন বার বজ্রপাত হয়।

এবং সেগুলি খোলা মাঠের ঘাসকেও খুঁড়ে দিতে করতে পারে

এই গলফ খেলার মাঠটিতেও ফুটে ওঠেছে Lichtenberg figure

এরকম দাগের “লিচেনবার্গ ফিগার” নামকরণের কারণ হল, জার্মান প্রকৃতিবিজ্ঞানী জর্জ খ্রিস্টোফ লিচেনবার্গ এই দাগ প্রথম আবিষ্কার করেন এবং এটা নিয়ে গবেষণা করেন।

Source