যে ১০টি সিনেমা অবশ্যই আপনার গোপনে দেখা উচিৎ!

0
2102

আমাদের প্রায় সবারই এমন শৈশবকাল ছিল, যখন আমরা আমাদের বাবা-মায়ের সাথে কোন সিনেমা দেখতাম তখন সেখানে যদি কোন বো’ল্ড দৃশ্য দেখাতো তো তখন বাবা-মা আমাদের কোন না কোন বাহানা দিয়ে বাইরে পাঠাতো। তারপর আমরা যখন বড় হয়ে উঠলাম, তখন আমরা নিজেরাই এমন দৃশ্যের সময় বাথরুমে যাওয়ার নাম করে উঠে যেতাম। কিন্তু থিয়েটারে এমন সুবিধা পাওয়া যায় না, তাই বাবা-মা হঠাৎ আমাদের সাথে এমন একটি দৃশ্যের সময় কথা বলতে শুরু করেন।

এরপর, যখন আমরা বড় হলাম এবং জীবনে গার্লফ্রেন্ড এলো। গার্লফ্রেন্ডের সাথেও সমস্যার শেষ নেই। আমরা যে সিনেমাটি পছন্দ করি তা তাদের হয় ‘অশ্লী’ল’ নাহলে ‘জঘ’ন্য’ লাগে।

এই জন্য, বাবা-মায়ের সাথে ‘সিক্রেট সুপারস্টার’ টাইপের সিনেমাগুলি দেখতে হয় এবং গার্লফ্রেন্ডের সাথে ‘হাফ গার্লফ্রেন্ড’ এর মতন। কিন্তু এই দুই ধরনের ছাড়াও অনেকগুলি চলচ্চিত্র রয়েছে যা আমরা পছন্দ করি। যে ১০টি মুভি ছেলেদের অবশ্যই গোপনে দেখা উচিৎ! আজ, আমরা আপনাকে ঐ ধরনের ছবির কথা বলতে যাচ্ছি। তারপর দেরীর ব্যাপার কি? তাহলে আসুন ঐ ধরনের সিনেমাগুলি সম্পর্কে কথা বলা যাক।

গ্যাং অফ ওয়াসেপুর –

 

অনুরাগ কাশ্যপের এই ছবিতে, গুলি এবং গালাগালি খোলাখুলি ভাবে ব্যবহার হয়েছে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এই বদলার গল্পটি যে বাস্তবিকতার সাথে চিত্রায়িত করা হয়েছে, তার কোন জবাব নেই। এই জন্যই আপনি এক বার নয় বরং এটি বার বার দেখতে চাইবেন।

হান্টার –

চলচ্চিত্র ‘হান্টার’ এর নায়ক ‘মান্দার’ সে’ক্সের তুলনা পটি করার সাথে করে। তিনি বিশ্বাস করেন যে পটি করার মতন যৌ’নতাও মানুষের একটি মৌলিক প্রয়োজন। এইবার বুঝতে পারছেন যে কেন এই মুভি ছেলেদের একা দেখা উচিত? এই চলচ্চিত্রের দৃঢ় কন্টেন্ট এই চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য।

মাতৃভূমি –

২০০৩ সালের এই ছবিতে দেখানো হয়েছে যে “কন্যাকে বাঁচানো কতটা প্রয়োজন।” এই গল্পটি একটি গ্রামের যেখানে দেখানো হয় যে মেয়ের অভাবের কারণে ৫ জন ভাইয়ের সাথে একটি মেয়েকে বিয়ে দেওয়া হয়। তার শোষণ প্রায় সমগ্র গ্রাম করে। এই চলচ্চিত্রটিতে সাহসী দৃশ্যাবলী এবং গালাগালি ভরপুর রয়েছে।

রক্ত চরিত্র –

‘রক্ত চরিত্র’ হল রামগোপাল বর্মার সেরা ছায়াছবির মধ্যে একটা। ‘গ্যাং অফ ওয়াসেপুর’ এর মতো এই ছবিটিও বদলার একটি গল্প। এর দুটি অংশ তৈরি করা হয়। এর মধ্যেও গুলি, গালাগালি এবং র’ক্তও রয়েছে। যদি আপনি ‘গ্যাং অফ ওয়াসেপুর’ পছন্দ করেন তাহলে এই সিনেমাটি মিস করবেন না।

আনফ্রিডম –

এই চলচ্চিত্রে সমকা’মীতা এবং সন্ত্রাসবাদের মত বিষয় উত্থাপিত হয়েছে। তার বোল্ড কন্টেন্টের কারণে এটি ভারতে নি’ষিদ্ধ করা হয়েছিল। যদি আপনি বিভিন্ন বিষয়ে সাহসী চলচ্চিত্র দেখতে পছন্দ করেন তবে এই চলচ্চিত্রটি আপনার জন্য। এটি দেখার সময় শুধুমাত্র মনে রাখবেন যে এটি একা দেখবেন।

তিতলি –

কানু বেহল পরিচালিত এই চলচ্চিত্রটি দেখে আপনি বিরক্তও হতে পারেন। এখানে খোলাখুলি র’ক্তার’ক্তি দেখানো হয়েছে। তবুও, আপনি অবশ্যই জীবনের এই কুশ্রী দৃষ্টিভঙ্গি দেখতে পারেন, কিন্তু একা বসে।

লাভ সেক্স অর ধোকা –

এই সিনেমাটির শিরোনামটিই যথেষ্ট যে কেন এই চলচ্চিত্রটি একা দেখা উচিত। এই চলচ্চিত্রে প্রেম, যৌ’নতা এবং প্রতারণার তিনটি ভিন্ন গল্প দেখানো হয়েছে। বিশ্বাস করুন, এই গল্পগুলি আপনাকে অস্থির করে দেবে।

বি.এ. পাস –

 

এই সিনেমাটি অনেক গুলো পুরষ্কার নিজের নামে করেছে, এছাড়াও এর মধ্যে একটি শক্তিশালী বার্তা আছে। যৌ’নতা এবং অপরাধ মূলক এই ছবিটি একাই দেখা ভালো।

রমন রাঘাব ২.০ –

এটি খুব বিরল যখন একটি অপরাধীর জীবনী তৈরি করা হয়, কিন্তু অনুরাগ কাশ্যপ এটি করতে পারেন। সিরিয়াল হ’ত্যাকারী রমন যিনি মানুষদের নল দিয়ে হ’ত্যা করতো, তার জীবনী খুব ভালো করে এই ছবিতে দেখানো হয়েছে। এখানে অনুরাগের অন্যান্য চলচ্চিত্রের মতো, গালাগালি ও যৌ’ন দৃশ্য পরিবেশিত হয়েছে।

পেয়ার কা পঞ্চানামা –

এই ছবিতে দেখানো হয়েছে যে পুরুষ কিভাবে সম্পর্কের মধ্যে মেয়েদের হাতে পিষে যায়। যদি আপনি এটি গার্লফ্রেন্ডের সাথে দেখেন তাহলে সে খারাপ ভাববে এবং আপনি যদি পরিবারের সাথে দেখেন তবে আপনার সত্য বেরিয়ে আসবে। তাই এটা একাই দেখুন।

যদি আপনি এই চলচ্চিত্রগুলি না দেখেন তবে অবশ্যই দেখতে পারেন এবং ‘আপনাকে ধন্যবাদ’ দেবার কোন দরকার নেই।