বিয়ের বাড়িতে নিমন্ত্রিতরা খেতে বসে জানতে পারলেন বর করো’না পজেটিভ

0
371
প্রতীকী ছবি

কব্জি ঢুবিয়েই চলছিল খাওয়াদাওয়া একদিকে। কেউ কেউ মেনুর খোঁজ করছিলেন কী কী আছে আজ পাতে। ব্যস্ত বরযাত্রী থেকে শুরু করে অতিথিরা। অন্যদিকে বিয়েও প্রায় সারা, পিঁড়িতে তখনও বসে বর-কনে। তাল কেটে গেল আচমকা কয়েকজন সিভিক পু’লিশকে সঙ্গী করে একদল স্বাস্থ্যকর্মী বিয়ের আসরে হাজির হতেই। জানা গেল, বর বাবাজি নিজেই করো’নায় আ’ক্রান্ত। আগের রাতেই মিলেছে তাঁর ‘পজিটিভ’ রিপোর্ট।

প্রতীকী ছবি

কিন্তু উপসর্গহীন হওয়ায় জ্বরও আসেনি বা হাঁচি-কাশি আসেনি জামাইয়ের। স্বাস্থ্যকর্মীদের মুখে বৃত্তান্ত শুনে নিমেষেই বিয়েবাড়ি ফাঁকা। কেউ খাবার অর্ধেক ফেলে রেখেই বিয়েবাড়ি ছাড়লেন, আবার কেউ এক-দু’কথায় বিদায় নিয়ে যেন হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন।

প্রতীকী ছবি

জানা গিয়েছে, শালপাতরা গ্রামের বাসিন্দা ওই পাত্র দিন দশেক আগে ফিরেছেন গুজরাত থেকে। সেদিনই পরীক্ষার জন্য তাঁর লালরস সংগ্রহ করা হয়। বুধবার রাতে তাঁর পজিটিভ রিপোর্ট আসে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ওই যুবকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা চালান স্বাস্থ্যকর্মীরা। কিন্তু মোবাইলে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। পরে পাড়ায় গিয়ে তাঁরা জানতে পারেন, ওই যুবক বিয়ে করতে গিয়েছেন। আর তারপরই হিজলি গ্রামের কনের বাড়িতে সটান বিয়ের আসরেই হাজির হন ওই স্বাস্থ্য কর্মীরা। তারপরেই এই ঘটনা।

প্রতীকী ছবি

বিয়ের অনুষ্ঠান তো তখন কার্যত মাথায় উঠেছে। কিন্তু নববধূকে নিয়ে তড়িঘড়ি যে ‘সং’ক্রমিত’ বর গ্রামে ফিরবেন, তারও যে উপায় নেই! কারণ, ফুল দিয়ে সাজানো যে গাড়িতে চড়ে পাত্র বিয়ে করতে এসেছিল, তাঁর সং’ক্রমণের খবর শুনে চালকও ততক্ষণে গাড়ি নিয়ে উধাও। ভাগ্যিস পাড়ার একজন বাইক নিয়ে এগিয়ে এলেন। সেই বাইকে চড়েই নববধূকে নিয়ে শেষ পর্যন্ত করো’না ‘পজিটিভ’ বর ফিরলেন শালপাতরায় নিজের বাড়িতে।

প্রতীকী ছবি

শ্বশুর বাড়িতে নববধূর প্রথম পদার্পণের আচার-অনুষ্ঠান নমো নমো করে সারা হতেই বরকে নিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা রওনা হলেন ‘সেফ হোমে’। নববধূ একরাশ উদ্বেগ নিয়ে আপাতত শ্বশুর বাড়িতেই। তখনই তাঁর লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হলেও, সেই রিপোর্ট এদিন রাত পর্যন্ত মেলেনি। এমন ঘটনার জন্য দু’পক্ষের কেউই তৈরি ছিলেন না। কাজেই আচমকা এই অঘটনে কার্যত যেন সকলেরই মুখে কুলুপ।

সূত্র –