মৃ’ত্যুকে উপেক্ষা করেই স’ঙ্গমে মাতলো দুই পার্কার অ্যাথলিট

0
575

কাছাকাছি তোলা ছবি স্যোশাল মিডিয়া পোস্ট। পরিণতী হল ভ’য়ঙ্ক’র। ইরানের তেহরানে বাড়ির ছাদে প্রেমিকাকে চু’মু দিয়ে গ্রে’প্তার হয়েছেন এক ইরানি খেলোয়াড়। প্রকাশ্যে এমন ছবি সচারচর দেখা যায় না! তাও আবার ইরানের মতো দেশে। সেই দেশেই সংস্কারকে দূরে সরিয়ে সাহসী পদক্ষেপ করতে দেখা গেল দুই পার্কার অ্যাথলিটকে। আর সেই ছবি নেট দুনিয়ায় হু হু করে ছড়িয়ে পড়তেই গ্রে’ফতার করা হয়েছে দুই অ্যাথলিটকেই। অশা’লীন ছবি পোস্টের দায়ে গ্রে’ফতার করা হয় তাঁদের।

মৃ’ত্যু ভ’য়কে উপেক্ষা করেই স’ঙ্গমে মিলিত হয়েছে এক যুগল। এক পা এদিক ওদিক হলেই নিশ্চিত মৃ’ত্যু। তারপরও ভ’য়ঙ্ক’র রোমান্টিক একাধিক মুহূর্ত হল লেন্সবন্দি। নেট দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই যা ভাইরাল। কিন্তু এর পেছনে রয়েছে অন্য রহস্য।

জানা যায়, আলিরিজা ইরানের পার্কর অ্যাথলেট ও ফটোগ্রাফার। তিনি প্রেমিকাকে নিয়ে ছাদে উঠে চু’মু খান। ওই ঘটনার ভিডিও তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রাম পোস্ট করেন। ভিডিওতে দেখা যায়, শুধু একটি হাফপ্যান্ট পরে ছাদে এক নারীকে চু’মু খাচ্ছেন তিনি। ওই নারীও হাফপ্যান্ট ও স্পোর্টসব্রা পরেন। আলিরিজা ‘দ্য ডন অব তেহরান’ শিরোনামে ভিডিওটি পোস্ট করেন।

এক না একাধিকভাবে পরস্পরের ঘনি’ষ্ঠ হয়েছেন ওই তরুণ তরুণি। তোলা হয়েছে সেই সকল ছবিও। দেখে মনেই হতেই পারে মৃ’ত্যুর ভয়কে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে জীবনের আনন্দে মেতেছেন ওই যুগল। নেট দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই ভাইরাল সেই ছবি।

তেহরান পু’লিস জানিয়েছে যে ইরানের রী’তিবি’রুদ্ধ আচরণ করেছে ওই দুই অ্যাথলিট, তাই তেহরানের সাইবার পু’লিস গ্রে’ফতার করেছে আলিরেজা ও তাঁর স্টান্ট পার্টনারকে। অ্যাক্রোব্যাটিক স্টান্টের জন্য ইরানে বিখ্যাত এই পার্কার অ্যাথলিটের এমন ছবি দেখে অনেকেই সমালোচনায় মুখর হয়েছেন।

এটা একপ্রকার স্টান্ট গেম। নাম পার্কো। পার্কোর খেলাটির জন্ম ৯০-এর দশকে ফ্রান্সে। যেখানে দুর্গম স্থানে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে বিভিন্ন স্টান্ট শেখানো হয়। বিশেষ করে শহরের উঁচু বিল্ডিংয়ের ছাদের একেবারে শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে স্টান্ট করতে হয়।

এই স্পোর্টস তেহরানেও বেশ ভালই জনপ্রিয়। সে ছবিই ধরা পড়েছে ইরানের বিখ্যাত পার্কোর অ্যাথলিট আলিরেজার পেজে চোখ রাখলে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, কীভাবে ছাদের পাঁচিল থেকে শূন্যে পা ঝুলিয়ে ভয়ংকর পজিশনে বসে চু’ম্ব’নরত যুগল।

দেখুন ভিডিও –

সূত্র –